home / বিনোদন
কলকাতার পাবলিক টয়লেটে স্যানিটারি ন্যাপকিন রাখার ব্যবস্থা করছেন ঋতাভরী!

কলকাতার পাবলিক টয়লেটে স্যানিটারি ন্যাপকিন রাখার ব্যবস্থা করছেন ঋতাভরী!

ব্রহ্মা জানেন গোপন কম্মোটি। আপাতত এটাই ঋতাভরী (Ritabhari) চক্রবর্তীর রিয়েল লাইফ ট্যাগলাইন। অরিত্র মুখোপাধ্যায়ের পরিচালনায় এই ছবিতে অভিনয় করেছেন অভিনেত্রী। শহর মুড়েছে পোস্টারে। আগামী সপ্তাহেই মুক্তি পাবে এই ছবি। মেয়েদের নিয়ে নানা সামাজিক ভ্রান্ত ধারণার মূলে আঘাত করবে এই ছবির ভাবনা। আর এই কাজটা করতে গিয়েই নতুন আরও একটা কাজে নিজেকে জড়িয়ে ফেলেছেন অভিনেত্রী।

অভিনয় তাঁর পেশা। কিন্তু ঋতাভরী একজন সোশ্যাল ওয়ার্কারও। তিনি মনে করেন, তাঁর কিছু সামাজিক দায়িত্ব রয়েছে। এই ছবির প্রচারেই প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে কিছুদিন আগে তাঁর আলাপ হয়েছে শোভন মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে। দক্ষিণ কলকাতার বাঁশদ্রোণীর এই তরুণকে পরিচিতরা অনেকেই ‘কলকাতার প্যাডম্যান’ বলে ডাকেন। কলকাতা (Kolkata) শহরে বিভিন্ন পাবলিক লেডিজ-টয়লেটে তিনি স্যানিটারি ন্যাপকিন রেখে আসেন বলে তাঁর এই নাম। এবার এই কাজ আরও বড় ভাবে করার লক্ষ্যে তাঁর হাত ধরেছেন ঋতাভরী।

ঋতাভরী শেয়ার করলেন, “কলকাতার ৩৭০টা পাবলিক টয়লেটে স্যানিটারি ন্যাপকিনের ভেন্ডিং মেশিন লাগানোর কাজ শুরু করেছি আমরা। শোভন, আমি আর আমার বন্ধু রাহুল দাশগুপ্ত। এর পাশাপাশি থাকবে হাইজিন নিয়ে বিভিন্ন তথ্য। যেমন ধরুন, পিরিয়ডের সময় পাঁচ ঘণ্টা অন্তর প্যাড না বদলালে ক্যানসার পর্যন্ত হতে পারে। আমিই জানতাম না। এমন খুব জরুরি কিছু তথ্য থাকবে। অলরেডি ৭৫টা টয়লেটে ভেন্ডিং মেশিন লাগানো হয়ে গিয়েছে। পরের ১০০টার কাজ শুরু হবে আগামী সোমবার। আগামী জুনের মধ্যে শেষ করার টার্গেট নিয়েছি।”

আরও পড়ুন, ছেলের বউ পুরোহিত হলে মেনে নেবেন? পথ দেখাবে ‘ব্রহ্মা জানেন গোপন কম্মোটি’

স্যানিটারি ন্যাপকিনের ভেন্ডিং মেশিন উদ্বোধনে ঋতাভরী, শোভন এবং অন্যান্যরা।

ঋতাভরীর নতুন ছবি এক মহিলা পুরোহিতের গল্প বলবে। পিরিয়ড হলে যে মেয়েরা অশুচি হয়ে যায় না, সেই বার্তাই দেবে এই ছবি। তারই প্রচারে গিয়ে নতুন ধরনের একটা কাজের সঙ্গে যুক্ত হলেন তিনি। “শোভন শুরু করেছিল কাজটা। ওর সঙ্গে যখন আলাপ হল জানতে পারলাম, ফান্ডিংয়ের একটা বড় সমস্যা রয়েছে। এক একটা মেশিনের দাম ৬০০০ টাকা। পাঁচ টাকার কয়েন ফেলে প্যাড নিতে হয়। গোটা প্রজেক্টের বাজেট ১৮ লক্ষ টাকা। ওর একার পক্ষে এতটা ফান্ড জোগাড় করা সমস্যা হচ্ছিল। পাশাপাশি সর্বস্তরে ওর সাহায্য দরকার। তখন আমি ঠিক করলাম, কাজটা করব। ফান্ডিং জোগাড় করব। আর শুধু প্যাড রাখা নয়। অনেক তথ্যও দেওয়া থাকছে। যা ফলো করলে আমরা মেয়েরাই সুস্থ থাকব। বন্ধন নামে একটা অ্যাপও রয়েছে। গুগল প্লে স্টোরে পাওয়া যায়। ধরুন, কেউ একজন বেহালায় রয়েছেন। রাস্তায় পিরিয়ড হয়ে গেল। তিনি তথন ওই অ্যাপটার মাধ্যমে দেখতে পারবেন বেহালার কোন পাবলিক টয়লেটে ভেন্ডিং মেশিন অ্যাভলেবল। সহজেই সেখানে পৌঁছতে পারবেন। আমরা চাই, কলকাতাই প্রথম শহর হোক যেখানে সব পাবলিক টয়লেটে এই সুবিধে থাকবে। সেখান থেকে ইন্সপিরেশন নিয়ে বাকি শাহরগুলোতেও তাহলে একই ভাবে কাজ হতে পারে।”

২০১৭-র অক্টোবরে, নিজের এলাকা বাঁশদ্রোণী থেকেই এই কাজ শুরু করেছিসলেন শোভন। এবার পাশে পেলেন ঋতাভরীকেও।

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!

২০২০ শুরু করুন আমাদের দারুণ দারুণ প্ল্যানার আর স্টেটমেন্ট সোয়েটশার্ট দিয়ে। এগুলো সবকটাই আপনারই মতো একশ শতাংশ মজার এবং অসাধারণ! ওহ হ্যাঁ, শুধুমাত্র আপনার জন্য রয়েছে ২০ শতাংশ ছাড়ের ব্যবস্থাও। দেরি কিসের আর, এখনই POPxo.com/shop থেকে কেনাকাটা সেরে ফেলুন আর নিজেকে আরেকটু পপ আপ করে ফেলুন!

28 Feb 2020

Read More

read more articles like this
good points logo

good points text