Ayurveda

শুধু কাশি কমাতেই না, ত্বকের যত্নেও কারুন কার্যকরী তুলসি পাতা

Debapriya BhattacharyyaDebapriya Bhattacharyya  |  Mar 22, 2021
শুধু কাশি কমাতেই না, ত্বকের যত্নেও কারুন কার্যকরী তুলসি পাতা in bengali

আয়ুর্বেদ চিকিৎসার প্রায় জন্ম লগ্ন থেকেই নানা রোগের চিকিৎসায় তুলসি পাতার ব্যবহার হয়ে আসছে। আর কেনই বা হবে না! এই প্রাকৃতিক উপাদানটিতে মজুত রয়েছে সোডিয়াম, কার্বোহাইড্রেট, ভিটামিন কে, ভিটামিন এ এবং ম্যাগনেসিয়াম, যা শরীরকে বিষমুক্ত রাখতে যেমন বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে, তেমনি নিয়মিত ২-৩ টে করে তুলসি পাতা খাওয়া শুরু করলে দেহের ভিতরে প্রদাহের মাত্রা কমে, সেই সঙ্গে সংক্রমণের আশঙ্কা আর থাকে না, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার উন্নতি ঘটে, এমনকী কিডনিতে স্টোন হওয়ার মতো সমস্যা দূরে থাকতেও বাধ্য হয়। তবে এখানেই শেষ নয়, ডার্মাটোলজিস্টদের (skin care with tulsi) মতে ত্বকের পরিচর্যায় যদি তুলসি পাতাকে কাজে লাগানো হয়, তাহলে নাকি একাধিক উপকার পাওয়া যায়

১। ত্বকের চুলকানি রোধে

গরমকালে অনেকেরই ত্বকে চুলকানির সমস্যা দেখা দেয়

দেখতে দেখতে এসে গেছে গরমকাল। আর এই সময় নানা কারণে চুলকানির মতো স্কিন প্রবলেম মাথা চাড়া দিয়ে ওঠাটা খুবই স্বাভাবিক ঘটনা। তাই তো গরমকালে আরও বেশি করে ত্বকের যত্নে তুলসি পাতাকে (skin care with tulsi) কাজে লাগানো উচিত। কারণ এমন ধরনের ত্বকের সমস্যার প্রকোপ কমাতে এই প্রাকৃতিক উপাদানটি সত্যিই দারুন কাজে আসে। এক্ষেত্রে তুলসি পাতার পেস্টের সঙ্গে অল্প করে লেবুর রস মিশিয়ে সেই মিশ্রণটি যেখানে যেখানে চুলকাচ্ছে, সেখানে কিছু সময় লাগিয়ে রাখলে উপকার মিলতে সময় লাগে না। বিশেষত, ঘামাচির মতো সমস্যাকে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসতে এই পেস্টটির কোনও বিকল্প হয় না বললেই চলে।

২। ত্বকের জেল্লা বাড়াতে

অল্প সময়েই ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পাক, এমনটা যদি চান, তাহলে পরিমাণ মতো তুলসি পাতা নিয়ে তা বেটে নিন। তারপর সেই পেস্টের সঙ্গে অল্প করে দুধ মিশিয়ে একটি মিশ্রণ বানিয়ে ফেলুন। তারপর সেই পেস্ট (skin care with tulsi) সারা মুখে লাগিয়ে কম করে ১৫-২০ মিনিট অপেক্ষা করুন। সময় হয়ে গেলে ঠান্ডা জল দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। তারপর পছন্দের যে কোন ময়েশ্চারাইজার ক্রিম মুখে লাগিয়ে কয়েক মিনিট মাসাজ করুন।

৩। ত্বকের প্রদাহ কমাতে

গরম পড়ে গেল, এবার শুরু হবে ত্বকের নানা সমস্যা

ত্বকের ভিতরে যাতে প্রদাহের মাত্রা না বাড়ে, সেদিকে খেয়াল রাখে এই বিশেষ ফেস মাস্কটি। আসলে তুলসি এবং চন্দনে এত রকমের উপকারী উপাদান রয়েছে যে, তা স্কিনের ভিতরে প্রবেশ করা মাত্র প্রদাহের মাত্রা কমতে শুরু করে। ফলে নানাবিধ ত্বকের রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা যেমন কমে, তেমনি স্কিনের সৌন্দর্য কমে যাওয়ার আশঙ্কাও আর থাকে না। পরিমাণ মতো তুলসি পাতার পেস্ট (skin care with tulsi), গোলাপ জল এবং চন্দন গুঁড়ো নিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিতে হবে। তারপর সেই মিশ্রণ, মুখে এবং গলায় লাগিয়ে ১০-১২ মিনিট অপেক্ষা করতে হবে। সময় হয়ে গেলে ধুয়ে ফেলতে হবে মুখ। এই ফেস মাস্কটির সাহায্যে প্রতিদিনই ত্বকের পরিচর্যা করা যায়

মূল ছবি সৌজন্য – পিক্সঅ্যাবে

POPxo এখন চারটে  ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!       

বাড়িতে থেকেই অনায়াসে নতুন নতুন বিষয় শিখে ফেলুন। শেখার জন্য জয়েন করুন #POPxoLive, যেখানে আপনি সরাসরি আমাদের অনেক ট্যালেন্ডেট হোস্টের থেকে নতুন নতুন বিষয় চট করে শিখে ফেলতে পারবেন। POPxo App আজই ডাউনলোড করুন আর জীবনকে আরও একটু পপ আপ করে ফেলুন!