বিনোদন

চার হাত এক হল সৃজিত-মিথিলার, কলকাতায় মেয়ে আইরাকে নিয়েই রেজিস্ট্রি করলেন তাঁরা

Parama SenParama Sen  |  Dec 6, 2019
চার হাত এক হল সৃজিত-মিথিলার, কলকাতায় মেয়ে আইরাকে নিয়েই রেজিস্ট্রি করলেন তাঁরা

যেমনটা ভাবা গিয়েছিল, শেষ পর্যন্ত তেমনটাই হল। আজ সন্ধেবেলা পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায় বিয়ে করলেন বাংলাদেশি অভিনেত্রী রাফিয়াত রশিদ মিথিলাকে। রেজিস্ট্রি করে। বিয়েটা হয়েছে খুবই সাদামাটাভাবে। মেয়ে আইরাকে নিয়ে গতকালই বাংলাদেশ থেকে চলে এসেছিলেন মিথিলা। আজ সকালে এসেছেন তাঁর পরিবারের বাকি লোকেরাও। সকলের সামনে প্রথমে আংটি বদল ও তারপর রেজিস্ট্রি করে বিয়ে সেরে ফেললেন তাঁরা। কবীর সুমন ও সাবিনা ইয়াসমিনের পরে আবার বিবাহসূত্রে আবদ্ধ হলেন দুই বাংলার দু’টি মানুষ। ভাষা ও ভাবধারা এক করল দুই বাংলাকে, আবার।

যদিও বিয়েটা (married) চুপিসাড়েই সেরে ফেলতে চেয়েছিলেন মিথিলা, কিন্তু শেষ পর্যন্ত সেটা আর হয়ে উঠল না। আসলে সৃজিতের (Srijit) পরিচিতি এখন ভারতব্যাপী। তাই এহেন মানুষের বিয়ের কথা চাপা থাকে না। বিশেষত যেখানে সৃজিতকে নিয়ে অতীতে বারে-বারে বহু গুঞ্জন উঠেছে। কখনও স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায়, কখনও জয়া আহসান কখনও আবার শ্রীনন্দাশঙ্করের নাম জড়িয়েছে তাঁর সঙ্গে। তাই কিছুদিন আগে যখন তাঁর বিয়ের গল্প প্রথম শোনা গিয়েছিল, তখনও তা বিশ্বাস করতে চাননি টলিউডের অনেকেই। ভেবেছিলেন, এবারেরটাও কিছুদিন পরেই জোর হারাবে। কিন্তু তা হয়নি। উল্টে মিথিলাকে আজ অফিশিয়ালি মিসেস মুখোপাধ্যায় বানিয়েই ফেললেন টলিউডের অন্যরকম এলিজিবল এই ব্যাচেলর!

বিয়েতে সৃজিত আর মিথিলা (Mithila) পরেছিলেন কালার কো-অর্ডিনেটেড পোশাক। সৃজিত কালো পাঞ্জাবি আর লাল জহর কোট। অন্যদিকে মিথিলা পরেছিলেন টুকটুকে লাল খাঁটি বাংলাদেশি জামদানি। কিনেছেন তাঁর দেশের নামী বস্ত্রবিপণি আড়ং থেকে। হাতে মেহন্দির রং, কপালো ছোট্ট লাল টিপ, মার্জিত সোনার গয়না ও ফুলের সাজে তাঁকে সুন্দরী যে লাগছিল, তাতে কোনও সন্দেহ নেই। মেয়েকেও লাল রংয়ের ফ্রক পরিয়েছিলেন তিনি। সকাল থেকেই মুখোপাধ্যায় বাড়িতে বাঙালি খাওয়াদাওয়ার আসর বসেছিল। জামাইয়ের জন্য অসময়ের পদ্মার ইলিশ নিয়ে এসেছিলেন মিথিলার বাবা-মা। রাতের খাওয়া অবশ্য বাড়িতে নয়। সকলে মিলে রেস্তরাঁতেই ডিনার সারবেন তাঁরা। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সৃজিতের বিশেষ ঘনিষ্ঠ টলিউডের গুটিকয়েক সেলেব্রিটি। 

কাল সকালেই সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় উড়ে যাচ্ছেন সৃজিত-মিথিলা। সেখানকার বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণার সুযোগ পেয়েছেন মিসেস মুখোপাধ্যায়। সমাজসেবা এবং শিশুকল্যাণ বিষয়ক গবেষণা করেন তিনি। পুরস্কৃতও হয়েছেন এই বিষয় নিয়ে, এর আগে। দিনসাতেক ওখানে থেকে হনিমুনটা ওখানেই আপাতত সেরে ফেলবেন তাঁরা। মিথিলাকে ওখানে থিতু করে দেশে ফিরে আসবেন সৃজিত। ব্যস্ত হয়ে পড়বেন ফেলুদা-র কাজ নিয়ে। দু’জনেই ফিরে যাবেন নিজের-নিজের ব্যস্ততায়।

তাঁদের জন্য রইল আামাদের তরফ থেকে শুভেচ্ছা আর আপনাদের জন্য রইল এই বিয়ের কিছু বাছাই করা ছবি…

Instagram

Instagram

Instagram

Instagram

Instagram

Instagram

Instagram

Instagram

Instagram

Instagram

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

এসে গেল #POPxoEverydayBeauty – POPxo-র স্কিন, বাথ, বডি এবং হেয়ার প্রোডাক্টস নিয়ে, যা ব্যবহার করা ১০০% সহজ, ব্যবহার করতে মজাও লাগবে আবার উপকারও পাবেন! এই নতুন লঞ্চ সেলিব্রেট করতে প্রি অর্ডারের উপর এখন পাবেন ২৫% ছাড়ও। সুতরাং দেরি না করে শিগগিরই ক্লিক করুন POPxo.com/beautyshop-এ এবার আপনার রোজকার বিউটি রুটিন POP আপ করুন এক ধাক্কায়..