Self Help

দুশ্চিন্তা ও মানসিক উদ্বেগ কমানোর ঘরোয়া উপায়

popadminpopadmin  |  Jul 24, 2019
দুশ্চিন্তা ও মানসিক উদ্বেগ কমানোর ঘরোয়া উপায়

ইন্টারভিউ বা কোনও গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষার আগে অল্পবিস্তর টেনশন হওয়াটা স্বাভাবিক, তা নিয়ে চিন্তা করার কোনও কারণ নেই। কিন্তু অ্যাংজাইটির কারণে যদি দিনের পর দিন রাতের ঘুম উড়ে যায়, সেই সঙ্গে লেজুড় হয় বুকে ব্যথা, হার্ট বিট বেড়ে যাওয়া এবং মাত্রাতিরিক্ত ঘাম হওয়ার মতো সমস্যা, তাহলে কিন্তু চিন্তার বিষয়। সেক্ষেত্রে কী করণীয়? বারে বারে অ্যাংজাইটি অ্যাটাক হলে চিকিৎকের পরামর্শ নেওয়া যেতেই পারে। তবে বাড়ি বসেও কিন্তু এমন সব সমস্যার প্রকোপ কমিয়ে ফেলা সম্ভব? কীভাবে? সে উত্তর পেতে হলে যে বাকি প্রতিবেদনে চোখ রাখতে হবে ।

১. ক্যামোমাইল চা

দিনে দিনে সবারই যে হারে অফিসের টেনশন বাড়ছে, তাতে হঠাৎ করে অ্যাংজাইটি (anxiety) অ্যাটাকের মতো সমস্যার খপ্পরে পড়ার আশঙ্কা যে বেড়েছে, সে বিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই। তাই তো নিয়ম করে দিনে বার তিনেক ক্যামোমাইল চা পান করার প্রয়োজন রয়েছে। এমনটা কেন? কারণ, University of Pennsylvania Medical Centre-এর গবেষণায় দেখা গেছে নিয়মিত এই পানীয়টি খেলে শরীরে Apigenin এবং luteolin নামে দুটি উপদানের মাত্রা বাড়তে শুরু করে, যে কারণে অ্যাংজাইটির প্রকোপ কমতে সময় লাগে না। সেই সঙ্গে স্ট্রেস লেভেলও কমে। ফলে নিমেষেই মন-মেজাজ চাঙ্গা হয়ে ওঠে।

popxo recommends: Twinings Pure Camomile Tea, 25 Tea Bags

২. ল্যাভেন্ডার তেল

স্ট্রেস-অ্যাংজাইটির প্রকোপ কমাতে অ্যারোমাথেরাপিতে lavender oil-এর ব্যবহার বহুকাল ধরেই হয়ে আসছে। কারণ, এই এসেনশিয়াল তেলে মজুত রয়েছে এমন কিছু উপকারী উপাদান, যা ব্রেন সেলের ক্ষমতাকে বাড়িয়ে তোলে, সেই সঙ্গে রক্তচাপও নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। ফলে অ্যাংজাইটি অ্যাটাক হওয়ার আশঙ্কা আর থাকে না। কিন্তু প্রশ্ন হল, সবার পক্ষে তো আর প্রায় দিনই স্পায়ে ঢুঁ মারা সম্ভব নয়, তাহলে lavender তেলকে কাজে লাগানো যাবে কীভাবে? স্নানের জলে কয়েক ফোঁটা ল্যাভেন্ডার তেল মিশিয়ে স্নান করলে যেমন উপকার মিলবে, তেমনই শুতে যাওয়ার আগে মাথার বালিশে কয়েক ফোঁটা এসেনশিয়াল তেল ফেলে ঘুমতে গেলেও সমান উপকার মিলবে। কপালে-ঘাড়ে ল্যাভেন্ডার তেল লাগিয়ে নিয়মিত মিনিটদুয়েক মালিশ করলেও সমান উপকার পাওয়া যায়।

popxo recommends: Deve Herbes Pure Lavender Essential Oil 

৩. মাছ

দুশ্চিন্তাকে যদি জোড়া গোল দিতে হয়, তাহলে নিয়মিত চর্বিষুক্ত মাছ, নয়তো এক মুঠো করে আমন্ড খেতে ভুলবেন না যেন! কারণ, এই সব খাবারে মজুত রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড, যা রক্তে মেশা মাত্র cortisol নামক স্ট্রেস হরমোনের ক্ষরণ কমিয়ে দেয়, যে কারণে স্ট্রেস লেভেল তো কমেই, সঙ্গে অ্যাংজাইটির প্রকোপ কমতেও সময় লাগে না।

৪. অল্পবিস্তর হাঁটাহাঁটি বা এক্সারসাইজ করা মাস্ট

বেশ কিছু স্টাডিতে একথা প্রমাণিত হয়ে গেছে যে সপ্তাহে দিন চারেক মিনিটকুড়ি হাঁটহাঁটি বা যে কোনও ধরনের এক্সারসাইজ করলে endorphin হরমোনের ক্ষরণ বেড়ে যায়, যে কারণে নিমেষেই মন-মেজাজ চাঙ্গা হয়ে ওঠে। সেই সঙ্গে স্ট্রেস-অ্যাংজাইটির মতো সমস্যাও ধরে কাছে ঘাঁষতে পারে না। তাই এবার থেকে দুশ্চিন্তা বড়লেই একটু ঘুম ঝরিয়ে নেবেন। দেখবেন, উপকার পাবেই পাবেন!

৫. এপসম লবন

দুশ্চিন্তা দূর করে মন-মেজাজকে নিমেষে চাঙ্গা করে তুলতে এই প্রাকৃতিক উপাদানটির জুড়ি মেলা ভার। কারণ, এই লবনে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় ম্য়াগনেশিয়াম এবং সালফেট, যা এই ধরনের সমস্যার প্রকোপ কমাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। সেই সঙ্গে রক্তচাপও নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। কিন্তু প্রশ্ন হল এত সব উপকার পেতে কীভাবে কাজে লাগাতে হবে এই লবনকে? সপ্তাহে বার চারেক স্নানের জলে হাফ কাপ ইপ্সম লবন মিশিয়ে স্নান করলেই দেখবেন স্ট্রেস-অ্যাংজাইটি সব দূরে পালাবে।

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

এগুলোও আপনি পড়তে পারেন

এইচ আই ভি ও এইডস এর লক্ষণ গুলো কি কি?

আপনি যদি রংচঙে, মিষ্টি জিনিস কিনতে পছন্দ করেন, তা হলে POPxo Shop-এর কালেকশনে ঢুঁ মারুন। এখানে পাবেন মজার-মজার সব কফি মগ, মোবাইল কভার, কুশন, ল্যাপটপ স্লিভ ও আরও অনেক কিছু!