Advertisement

Self Help

এই পাঁচটি মেয়েলি শারীরিক সমস্যা নিয়ে এবার অন্তত মুখ খুলুন

Debapriya BhattacharyyaDebapriya Bhattacharyya  |  Oct 9, 2021
এই পাঁচটি মেয়েলি শারীরিক সমস্যা নিয়ে এবার অন্তত মুখ খুলুন

Advertisement

মেয়েমানুষের হল কই মাছের প্রাণ। সে সর্বংসহা, প্রাণটি গেলেও তার মুখটি ফোটে না। সবকিছু, তা সে শারীরিক কষ্টই হোক কিংবা মানসিক চাপ, সব সহ্য করেও মুখে হাসিটি নিয়ে সে কর্তব্য করে যাবে…মোটামুটি এরকম একটি নিরূপা রায়-সাবিত্রী চট্টোপাধ্যায়মার্কা বাঙালি মহিলার ইমেজের সঙ্গে আমরা সেই ছোট্টবেলা থেকেই পরিচিত।

সেই ধারণায় বলে দেওয়া আছে যে, ছোটখাটো শারীরিক সমস্যা নিয়ে মাথা ঘামানো কিংবা পাড়া মাথায় করা, কোনওটাই মেয়েদের সাজে না। তাই আমরাও ছোটবেলা থেকে নানা মেয়েলি শারীরিক সমস্যা (health issues) লুকিয়ে রাখতে শিখে যাই। একটুও ভাবি না যে, মেয়েদের (women) শরীর পুরুষদের তুলনায় ঢের বেশি ডেলিকেট। ছোটখাটো নানা মেয়েলি সমস্যায় তা একেবারেই লুকিয়ে না রেখে মুখ ফুটে বলে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব মিটিয়ে ফেলা উচিত। বিশেষ করে এখানে বলা এই পাঁচটি সমস্যা তো কোনওদিন লুকিয়ে রাখবেন না, তা হলে বিপদে পড়বেন নিজেরাই…

ঋতুস্রাবজনিত সমস্যা

ও মা, এটা নিয়ে আবার কথা বলবেন কী! এটা তো এখনও ট্যাবু। পিরিয়ড শব্দটির চলিত বাংলা শব্দটি হল ‘শরীর খারাপ!’ শুনলেই কেমন গা-পিত্তি জ্বলে যায় না? একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ শারীরিক প্রক্রিয়া, সেটিকে খামোকা শরীর খারাপ বলে অভিহিত করা হয়ে আসছে যুগের পর যুগ ধরে এবং আমরা সেটিকেই শিরোধার্য করে নিয়েছি। এটা তো তা-ও বা মেনে নেওয়া যায়, কিন্তু পিরিয়ড-সংক্রান্ত কোনও প্রশ্ন কাউকে করা যাবে না কেন, বলতে পারেন?

প্রতিটি মেয়ের পিরিয়ড নিয়ে আলাদা-আলাদা সমস্যা থাকতে পারে। সেকথা কাউকে না বললে, যেটা আমি এক্সপিরিয়েন্স করছি, সেটি স্বাভাবিক নাকি অস্বাভাবিক, তা বুঝবই বা কী করে? আর এই পিরিয়ড-সংক্রান্ত সমস্যা পরে গিয়ে পলিসিস্টিক ওভারিয়ান সিনড্রোম, ওভারির আরও নানা সমস্যা, ইউটেরাসের সমস্যা ইত্যাদি নানা দিকে টার্ন নিতে পারে। তাই দোহাই, পিরিয়ড নিয়ে যদি কোনওকিছু অদ্ভুত ঠেকে, কাউকে জানান। নিতান্ত বলতে না পারলে ডাক্তারের শরণাপন্ন হোন।

যৌনতা নিয়ে প্রশ্ন

এটা নিয়ে তো ভারতীয় মহিলাদের লজ্জা পৃথিবীবিখ্যাত! আমরা ভুলেই যাই যে, নাওয়া-খাওয়া-শোওয়ার মতো সেক্সও অতি স্বাভাবিক একটি শারীরিক প্রক্রিয়ামাত্র। আমাদের মধ্যে অনেকেরই অর্গাজম সম্বন্ধে সঠিক কোনও ধারণা নেই। শারীরিক মিলন ব্যাপারটি যে মেয়েদের জন্যও সমান তৃপ্তিদায়ক একটি ঘটনা, তা-ও আমরা জানি না বা বলা ভাল, জানার চেষ্টাও করি না।

আমরা অল্প জেনেই খুশি আছি। অথচ, কারও-কারও যে শারীরিক মিলনের সময় যৌনাঙ্গে ব্যথার অনুভূতি বেশি হয়, সেফ সেক্স কাকে বলে, সেক্সুয়ালি ট্রান্সমিটেড ডিজিজ কীভাবে হয় আর সেসবের হাত থেকে বাঁচতে চাইলে কী-কী সাবধানতা অবলম্বন করা প্রয়োজন, এসব অনেকের কাছে অজানাই থেকে যায় এবং তার ফলে নানা সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়।

অবাঞ্ছিত রোম – দায়ী হতে পারে হরমোন

এটি এমন একটি শারীরিক সমস্যা, যেটি পরে মানসিক অবসাদেরও কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। কিন্তু এটি লুকিয়ে রাখাও আমাদের বদভ্যেস। আসলে লোম এবং মেয়ে, এই দুটো ব্যাপারকে ছোটবেলা থেকে এতটাই আলাদা করে চেনানো হয়েছে যে, অতিরিক্ত লোমজনিত কোনও সমস্যা যে রেজার দিয়ে নয়, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিয়েই তাড়াতে হয়, এটির পিছনে যে আসলে হরমোনাল নানা ইমব্যালান্সই দায়ী, সেকথা আমাদের মাথাতেও আসে না। কিন্তু প্লিজ আনুন। নইলে আখেরে ক্ষতি আপনারই। 

যোনিঘটিত সমস্যা

পিরিয়ড নিয়ে কথা বলতেই আমরা কোনওদিন শিখিনি, তো ভ্যাজাইনা উচ্চারণ করতেই তো আমাদের হোঁচট খেয়ে মুখ থুবড়ে পড়ার কথা! আর হয়ও তাই। আমরা ভ্যাজাইনাল ডিসকমফর্ট নিয়ে প্রশ্ন করি না, অতিরিক্ত সাদা স্রাবের সমস্যায় মুখ খুলি না, যোনিদেশে কোনও ইনফেকশনের কারণে চুলকানি কিংবা জ্বালা হলেও মুখ বুজে থাকি! ফলে মেয়েদের মধ্যে সার্ভাইক্যাল ক্যান্সারের প্রবণতা ক্রমশ বাড়ছে, যেমন বাড়ছে ইউরিনারি ট্রাক্ট ইনফেকশনের সমস্যাও। আর এসবই হচ্ছে আমাদের মুখ বুজে থাকার কারণে! 

ওসব ছোটখাটো সমস্যার পিছনে থাকতে পারে বড় কোনও রোগ

আপনার কি আজকাল খুব ঘুম-ঘুম পায়, সাদা স্রাবের রংয়ে কোনও পরিবর্তন লক্ষ করেছেন কিংবা পিরিয়ডের সময় বেশি রক্তপাত হতে শুরু করেছেন বা মুখে খুব ব্রণ হচ্ছে…আপনার মহিলাসুলভ আপাতদৃষ্টিতে যেগুলো খুবই সাধারণ সমস্যা বলে মনে হচ্ছে, সেগুলো কিন্তু আসলে অন্য কোনও বড় সমস্যার দিকে ইঙ্গিত করছে। কিন্তু আমরা এই ছোট সমস্যাগুলি এড়িয়ে গিয়ে আরও বড় বিপদ ডেকে আনি। 

POPxo এখন চারটে ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!      

বাড়িতে থেকেই অনায়াসে নতুন নতুন বিষয় শিখে ফেলুন। শেখার জন্য জয়েন করুন #POPxoLive, যেখানে আপনি সরাসরি আমাদের অনেক ট্যালেন্ডেট হোস্টের থেকে নতুন নতুন বিষয় চট করে শিখে ফেলতে পারবেন। POPxo App আজই ডাউনলোড করুন আর জীবনকে আরও একটু পপ আপ করে ফেলুন!