রূপান্তরকামীদের পাশে অক্ষয়, কিন্তু কীভাবে?

রূপান্তরকামীদের পাশে অক্ষয়, কিন্তু কীভাবে?

ট্রান্সজেন্ডার। যার বাংলা অর্থ রূপান্তরকামী (transgenders)। এখনও যেন সমাজে ব্রাত্য এই সহনাগরিকেরা। তাঁদের কিছুটা আলাদা চোখেই দেখতে অভ্যস্ত বেশিরভাগ নাগরিক। ওঁরা যেন কিছুটা আলাদা। আর এই আলাদা তকমা নিয়েই নিজেদের মতো করে বাঁচতে শিখছেন রূপান্তরকামীরা। বহু বই লেখা হয়েছে তাঁদের নিয়ে। বহু সিনেমায় রূপান্তরকামীর চরিত্র এসেছে চিত্রনাট্যের দাবি মেনে। তবুও তাঁদের পাশে দাঁড়িয়েছেন ক'জন?  

রূপান্তকামীদের পাশে দাঁড়িয়েছেন যে মাত্র কয়েকজন, সেই তালিকায় যোগ হল আরও একটা নতুন নাম। অক্ষয় (Akshay) কুমার। চেন্নাইয়ে রূপান্তরকামীদের বাসস্থান তৈরির জন্য দেড় কোটি টাকা দান করলেন বলিউড অভিনেতা। 

পরিচালক রাঘব লরেন্সের আসন্ন ছবি 'লক্ষ্মী বম্ব'-এ এক ট্রান্সডেন্ডারের চরিত্রে অভিনয় করছেন অক্ষয়। তামিল ছবি 'কাঞ্চনা'র রিমেকে অক্ষয়ের সঙ্গে স্ক্রিন শেয়ার করবেন কিয়ারা আডবাণী। অক্ষয়ের এই দানের খবর সোশ্যাল মিডিয়ায় রাঘব শেয়ার করেন। তাঁর দাবি, রূপান্তরকামীদের পাশে এভাবে দাঁড়ানোর উহাদরণ ভারতে এই প্রথম। 

 

 

চেন্নাইতে রাঘবের সংস্থা বিভিন্ন সেবামূলক কাজের সঙ্গে যুক্ত। শিশুদের বাসস্থান, শিক্ষা, শারীরিক ভাবে অক্ষম নৃত্যশিল্পীদের থাকার ব্যবস্থা করে তাঁর সংস্থা। গত ১৫ বছর ধরে এই কাজ করার পর এবার রূপান্তরকামীদের জন্যও কিছু করতে চেয়েছিলেন তিনি। "লক্ষ্মী বম্ব এর শুটিংয়ে এই ট্রাস্টের বিভিন্ন প্রজেক্ট নিয়ে অক্ষয়ের সঙ্গে আলোচনা করেছিলাম। তখনই বলেছিলাম রূপান্তরকামীদের নিয়ে কিছু করতে চাই। সেটা শুনেই ওদের থাকার ব্যবস্থা করার জন্য দেড় কোটি টাকা দিয়ে দেন অক্ষয়। যাঁরা সাহায্য করেন, সকলেই আমাদের কাছে ঈশ্বর। এখন অক্ষয় স্যারও রূপান্তরকামীদের কাছে ঈশ্বর। শুধুমাত্র ধন্যবাদ বললে এই সমর্থনের কোনও যোগ্য উত্তর হয় না। সকলের আশীর্বাদ প্রয়োজন" বলেছেন রাঘব।

এক চোখে কাজল পরা। অন্য চোখে কাজলের টান দিচ্ছেন। চোখের দৃষ্টিতে মিশ্র অভিব্যক্তি। ঠিক এ ভাবেই 'লক্ষ্মী বম্ব'-এর প্রথম পোস্টার রিলিজ করেছিলেন অক্ষয়। ছবিতে থাকবে কিছু ভূতুড়ে অনুষঙ্গও। সম্ভবত অমিতাভ বচ্চনকেও এই ছবিতে এক ট্রান্সজেন্ডারের চরিত্রে অভিনয় করতে দেখবেন দর্শক।

২০১৯-এ নবরাত্রির সময়েও এই ছবির অন্য একটি লুক শেয়ার করেন অক্ষয়। তিনি লেখেন, একইসঙ্গে তিনি নার্ভাস এবং এক্সাইটেড। আসলে এই ধরনের চরিত্রে এর আগে অক্ষয়কে বিশেষ দেখা যায়নি। ফলে তাঁর কাছে গোটা জার্নিটাই নতুন। পাশাপাশি ছবির বিষয়ের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে সামাজিক কাজে যুক্ত হতে পেরে ভাল লাগছে অভিনেতার। যদিও এ নিয়ে তিনি সরাসরি কিছু বলেননি। ঘনিষ্ঠ মহলে তিনি জানিয়েছেন, সাধ্যমতো রূপান্তরকামীদের পাশে থাকার চেষ্টা করেছেন। এই ছবিতে অভিনয় করার সময়ই রূপান্তরকামীদের বেঁচে থাকার লড়াই তিনি অনুভব করেছেন বলে জানিয়েছেন।

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!

২০২০ শুরু করুন আমাদের দারুণ দারুণ প্ল্যানার আর স্টেটমেন্ট সোয়েটশার্ট দিয়ে। এগুলো সবকটাই আপনারই মতো একশ শতাংশ মজার এবং অসাধারণ! ওহ হ্যাঁ, শুধুমাত্র আপনার জন্য রয়েছে ২০ শতাংশ ছাড়ের ব্যবস্থাও। দেরি কিসের আর, এখনই POPxo.com/shop থেকে কেনাকাটা সেরে ফেলুন আর নিজেকে আরেকটু পপ আপ করে ফেলুন!