রেওয়াজের সময় পেলে প্রফেশনালি গাইব, এখন মনের আনন্দেই গাই, বললেন বিদীপ্তা

রেওয়াজের সময় পেলে প্রফেশনালি গাইব, এখন মনের আনন্দেই গাই, বললেন বিদীপ্তা

অনীক (Anik) দত্ত পরিচালিত 'বরুণবাবুর বন্ধু' মুক্তি পাবে আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি। পারিবারিক গল্পের কেন্দ্রে সৌমিত্র (Soumitra) চট্টোপাধ্যায়। গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন বিদীপ্তা (Bidipta) চক্রবর্তী। ছবি মুক্তির আগে নিজের অভিজ্ঞতা শেয়ার করলেন অভিনেত্রী। 

 

ছবির অফার যখন এসেছিল, কী ভেবে রাজি হয়েছিলেন?

যখন অনীকদা প্রথম ফোন করেছিলেন, আমি বিদেশে শুটিং করছিলাম। ভিডিও কলে তো অত কথা হয় না। ফলে প্রথমে ডিটেলে কিছু জানতাম না। তখন ডেট নিয়ে রেখেছিলেন। ফিরে এসে স্ক্রিপ্ট শুনে হ্যাঁ বলেছিলাম। কোন কোন ডিরেক্টরের সঙ্গে কাজ করলাম, সেটা আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ। অনীকদার সঙ্গে কাজ করার ইচ্ছে ছিল। সে কারণেই প্রাথমিক ভাবে রাজি হয়েছিলাম। ওঁর আগের ছবিগুলো দেখেছি। ওঁর মধ্যে যে রসবোধ রয়েছে, সেটা অনেকের মধ্যেই পাই না। অনসম্বল কাস্ট। সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের চরিত্র ঘিরেই গল্প। পরিবারের গল্প। ছবিতে দেখানো হবে, সকলেই ওঁকে ভালবাসেন। কিন্তু তার আড়ালে যে স্বার্থ লুকিয়ে রয়েছে সেটা খুব ভাল ভাবে দেখানো হয়েছে। আমি ওঁর ছেলের বউয়ের চরিত্র করেছি। আমার স্বামীর চরিত্রে রয়েছেন কৌশিক সেন।

অনীক দত্ত প্রথম কারণ... আর কিছু ভেবেছিলেন?

ছবির দৃশ্যে শ্রীলেখা, বিদীপ্তা এবং অনুষা।

গান আমার প্রথম প্রেম। কিন্তু কখনও প্রফেশনালি গাইনি। যখন অনীকদা বললেন, এই ছবিতে তোমাকে তিনটে রবীন্দ্রসঙ্গীত গাইতে হবে, সেটাই ছবিটা করতে চাওয়ার আরও একটা কারণ তো বটেই।  

এমন কিছু রয়েছে, যেটা এই ছবিটা করতে গিয়ে শিখলেন?

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়কে সামনে থেকে দেখা, তাঁর সঙ্গে স্ক্রিন শেয়ার করা, সময় কাটানোটাই তো জীবনের শিক্ষা। শুটিংয়ের মাঝে মাঝে উনি যে কথা বলেন, গল্প করেন, সেটাই তো আমার কাছে লার্নিং প্রসেস। 

প্রত্যেক পরিচালকের কাজের ধরন আলাদা। অনীকের কাজের ধরনকে কীভাবে ব্যখ্যা করবেন?

অনীকদা প্যানিক করেন। কখনও কখনও হয়তো খুব চিৎকার করেও ফেলেন। কিন্তু সবটাই কাজের জন্য। ফলে শুটিংয়ে যে আলাদা করে কিছু নজর করতে পেরেছি, এমন নয়। ছবিটা তৈরি হয়ে গেলে বোঝা যায়। অনীকদার প্রধান জোর তো স্ক্রিপ্ট এবং ডায়লগে। সেটার সিনেম্যাটিক ট্রিটমেন্টটা দেখার মতো। কোনও এক্সট্রা শট নেন না। অনেকের সঙ্গে কাজ করি তো, দেখি অনেকেই একটা সিন বিভিন্ন অ্যাঙ্গেল থেকে শুট করেন। কিন্তু অনীকদা তা নন। এডিট ভেবে কাজ করেন। পুরোটা মাথায় ছকা রয়েছে। একজন ডিরেক্টরের কাজ তো সেটাই।  

আর কী কী কাজ চলছে আপনার?

ছবির দৃশ্যে সহ অভিনেতাদের সঙ্গে বিদীপ্তা।

দেবালয় ভট্টাচার্যের 'ড্রাকুলা স্যার'-এর শুটিং শেষ হয়েছে। ডাবিং চলছে। ইন্দ্রদীপ দাশগুপ্তের 'বিসমিল্লাহ' করলাম। ওখানে কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায় আর আমার জুটি। আমাদের ছেলের ভূমিকায় ঋদ্ধি। রাজর্ষির দে-র 'আবার কাঞ্চনজঙ্ঘা'-র শুটিং শুরু করব এপ্রিল থেকে। এছাড়া জি-বাংলার 'আলো-ছায়া' ধারাবাহিকের কাজ চলছে। আর 'ব্রেন' নামের একটা থিয়েটার করছি অনেকদিন ধরেই। ওটার শো থাকে মাঝে মাঝে। 

বাহ...। অনেক কাজ আসছে। এর মধ্যে গানটা সিরিয়াসলি করার কথা ভাবছেন?

(হাসি) আমাকে জিজ্ঞেস করছেন অনেকে। কিন্তু গান প্রফেশনালি করতে গেলে, রেওয়াজের দরকার হয়। মেগার শুটিংয়ের শিডিউলে সেটা সম্ভব হয় না। ফলে রেওয়াজের সময় পেলে প্রফেশনালি গাওয়ার কথা ভাবব। এখন যেমন মনের আনন্দ গাই, সেটাই থাক...। 

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!

২০২০ শুরু করুন আমাদের দারুণ দারুণ প্ল্যানার আর স্টেটমেন্ট সোয়েটশার্ট দিয়ে। এগুলো সবকটাই আপনারই মতো একশ শতাংশ মজার এবং অসাধারণ! ওহ হ্যাঁ, শুধুমাত্র আপনার জন্য রয়েছে ২০ শতাংশ ছাড়ের ব্যবস্থাও। দেরি কিসের আর, এখনই POPxo.com/shop থেকে কেনাকাটা সেরে ফেলুন আর নিজেকে আরেকটু পপ আপ করে ফেলুন!