পুরনো প্রথা ভেঙে নজির গড়লেন কনে, নাচতে নাচতে বরের বাড়ি গেলেন বিয়ে করতে!

পুরনো প্রথা ভেঙে নজির গড়লেন কনে, নাচতে নাচতে বরের বাড়ি গেলেন বিয়ে করতে!

হাজার হাজার বছর ধরে চলে আসছে হিন্দু বিয়ের প্রথা। সবাই জানেন ঢাক ঢোল বাজিয়ে বরযাত্রী নিয়ে কনের (bride) বাড়িতে বিয়ে করতে আসেন পাত্র। যুগ যুগ ধরে সেটাই হয়ে আসছে। কিন্তু হঠাৎ যদি সেই প্রথাকে পুরো ৩৬০ ডিগ্রি উল্টোদিকে ঘুরিয়ে দেয় কেউ? তাহলে তো তাবড় হিন্দু সমাজ নড়েচড়ে বসে। আর এক্ষেত্রেও তাই হয়েছে। হইচই পড়ে গেছে চারদিকে। আরও খোলসা করে বলতে গেলে বলা যেতে পারে হইচই ফেলে দিয়েছে সেই কনে। গরিমা গুপ্তর নাম নিশ্চয়ই শোনেননি আপনারা? আরে আপনারা কেন, আমরা কেউই শুনিনি এতদিন গরিমার নাম। তবে আসল ঘটনাটা যদি বলি, তাহলে বুঝবেন সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে বেশ বিখ্যাত হয়ে গেছেন তিনি। ক্লাসিক জিপের (classic jeep)  বনেটে (bonnet) উঠে নাচতে নাচতে বিয়ে (grand entry) করতে গেছেন গরিমা। আর সেই ভিডিও হয়েছে ভাইরাল। 


ankur n garima


মধ্যপ্রদেশের সাতনা শহরের মেয়ে গরিমা লাজে রাঙা নববধূ হয়ে বরের অপেক্ষায় রইলেন না। উল্টে নিজেই ঢাক ঢোল পিটিয়ে, কনেযাত্রী নিয়ে বিয়ে করতে চলে গেলেন পাত্র অঙ্কুর গুপ্তর বাড়ি। এখানেই শেষ নয়। বিয়ের দিন মেয়েরা এমনিতেই বেশ নার্ভাস থাকে। মনও বেশ খারাপ থাকে তাদের। এতদিন বাবা মার নিশ্চিন্ত আশ্রয় ছেড়ে এক প্রায় অচেনা কারও বাড়ি চলে যাওয়ার চিন্তায় বেশিরভাগ কনেরই বুক ঢিপঢিপ করে। গরিমা কিন্তু এসবের ধার ধারলেন না। বোঝাই যাচ্ছে এই বিয়ে দারুণ এনজয় করছেন তিনি। তাই বরের বাড়িতে তিনি এমনি এমনি গেলেন না। চোখে সানগ্লাস পরে গাড়ির বনেটের উপর উঠে নাচতে নাচতে গেলেন! হ্যাঁ, একদম ঠিক শুনেছেন। নিজের বিয়ে নিয়ে এতটুকু ভীত হয়েছেন বা নার্ভাস হয়েছেন দেখে মনেই হচ্ছে না। গরিমার সঙ্গী সাথীরাও কম যান না। তারাও প্রাণ ভরে এই মজাদার বিয়ে উপভোগ করছেন। এই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় দেওয়া মাত্র পলকে ভাইরাল হয়ে যায় সেই ভিডিও।





গরিমা বাড়ির ছোট মেয়ে। তাই বেশ আদরে আবদারেই বড় হয়েছেন। আপাতভাবে তার এই নজিরবিহীন বিয়েতে বাধা দেননি কেউই। আপত্তি আসেনি বরের বাড়ি থেকেও। ফুল দিয়ে সজ্জিত জিপে প্রিয় বান্ধবীদের নিয়ে মজা করতে করতে বিয়ে করতে যাচ্ছেন গরিমা। এই ভিডিও দেখে অনুপ্রাণিত হয়েছেন অনেক হবু কনেই।বর্তমানে প্রায়ই দেখা যাচ্ছে যুগ যুগ ধরে চলে আসা প্রথা ভেঙে নজির সৃষ্টি করছেন কনেরা। কিছুদিন আগেই কনকাঞ্জলি দিতে অস্বীকার করেন এক বাঙালি কনে। বিহারে মদ্যপ পাত্রকে বিয়ে করতে অস্বীকার করেন এক কনে।তাছাড়া মহিলা পুরোহিতকে দিয়ে বিয়ে দেওয়ানো এবং মা এসে মেয়ের কন্যাদান করছে এসবও দেখা গেছে। প্রত্যেকেই সাধারণ মধ্যবিত্ত বাড়ির মেয়ে। এবার এই তালিকায় যুক্ত হল গরিমার নাম। গরিমার তিন দিদি আছেন। সবাই মিলে গরিমার এই সিদ্ধান্তকে সমর্থন জানিয়েছেন।ভিডিও বলে দিচ্ছি এরকমভাবে বিয়ে করার ইচ্ছে অনেক দিন আগে থেকেই মনের মধ্যে রেখেছিলেন গরিমা। রয়্যাল প্যালেসে তার ক্লাসিক জিপে করে গ্র্যান্ড এন্ট্রি সেটাই প্রমাণ করে দিল।    


POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!