জেএনইউ-তে ছাত্রদের পাশে দীপিকা, টুইটারে পেলেন সমর্থন আবার 'ছপাক' বয়কটের ডাকও!

জেএনইউ-তে ছাত্রদের পাশে দীপিকা, টুইটারে পেলেন সমর্থন আবার 'ছপাক' বয়কটের ডাকও!

দুটো ছবি। প্রথমটাতে গলাবন্ধ কালো পোশাক। খোঁপা। মুখে বিষাদ। আইলানার, কাজল পরা চোখে জল। ভিড়ের মধ্যে দাঁড়িয়ে রয়েছেন। দ্বিতীয় ছবিতে ক্যামেরার দিকে তাঁর মুখ। হাত নমস্কারের ভঙ্গিতে বুকের সামনে তোলা। মুখে স্মিত হাসি। ক্যামেরার দিকে পিছন করে দাঁড়িয়ে থাকা মাথায় ব্যান্ডেজ বেঁধে দাঁড়িয়ে থাকা মেয়েটার নাম যে ঐশী ঘোষ তা গত তিন দিনে জেনে গিয়েছেন সকলে। কারণ দিল্লির (Delhi) জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ে (JNU) ছাত্রী তিনি। তিন দিন আগে ক্যাম্পাসেই বহিরাগত দুষ্কৃতীদের হাতে আক্রান্ত হয়েছেন বলে অভিযোগ। মাথা ফাটিয়ে দেওয়া হয় তাঁর। সে ছবি ছড়িয়ে পড়ে সর্বত্র। আর যে ছবি দুটোর কথা শুরুতে বলা হল, তার মধ্যমণি দীপিকা (deepika) পাড়ুকোন।

মঙ্গলবার রাতে দিল্লির জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রছাত্রীদের পাশে থাকার বার্তা দিতে পৌঁছে গিয়েছিলেন দীপিকা। দিল্লিতে গিয়েছিলেন তাঁর আগামী ছবি 'ছপাক' (chhapaak)-এর প্রচারে। যা মুক্তি পাবে চলতি সপ্তাহের শুক্রবার। হঠাৎই বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে পৌঁছে যান নায়িকা। সোশ্যাল ওয়ালে ছড়িয়ে পড়ে তাঁর ছবি। একই সঙ্গে দ্বিধাবিভক্ত হয়ে যান সোশ্যাল অডিয়েন্সও।

গতকাল রাতে জেএনইউ ক্যাম্পাসে সাবরমতী হস্টেলের বাইরে টি পয়েন্টে জেএনইউ প্রাক্তনী এবং শিক্ষক সংগঠনের প্রতিবাদসভা ছিল। ছাত্র সংসদের আহত নেত্রী ঐশী ঘোষ-সহ প্রতিবাদী ছাত্রছাত্রীরাও ছিলেন। ছিলেন কানহাইয়া কুমার। কানহাইয়া যখন আজাদির স্লোগান তুলছিলেন, তাঁদের সকলের পাশেই দাঁড়িয়েছিলেন দীপিকা। সাড়ে সাতটা নাগাদ ক্যাম্পাসে পৌঁছে ঐশীকে নমস্কার জানিয়ে তিনি বলেন, তিনি কোনও বক্তৃতা করবেন না। শুধু ছাত্রছাত্রীদের পাশে থাকার বার্তা দিতেই এসেছেন।

 

এর পরই প্রাথমিক দীপিকার বিরুদ্ধে প্রাথমিক আক্রমণ শুরু হয় গেরুয়া শিবিরের পক্ষ থেকে। দিল্লি বিজেপির মুখপাত্র তেজিন্দার পাল সিংহ বগ্গা দীপিকার সমস্ত ছবি বয়কট করার ডাক দিয়েছেন। টুইটারে বিজেপির নেতা-কর্মীরা সমস্বরে তা সমর্থন করেছেন। গত রাত থেকেই জাতীয় স্তরে সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রেন্ডিংয়ে এক নম্বরে ছিল 'বয়কটছপাক', দু'ম্বরে 'আইসাপোর্টদীপিকা'। 

এনআরসি-সিএএ এবং জামিয়া-জেএনইউয়ের পড়ুয়াদের উপরে আক্রমণের বিরুদ্ধে দেশ জুড়ে প্রতিবাদের ঢল নেমেছে। দীর্ঘ সময় পরে বলিউডের বেশ কয়েক জন ধীরে ধীরে সরব হতে শুরু করেছেন। অনুরাগ কাশ্যপ-স্বরা ভাস্করের মতো পরিচিত প্রতিবাদী মুখগুলোর বাইরেও আরও অনেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় মুখ খুলছেন। আলিয়া ভট্ট, তাপসী পন্নু, রাজকুমার রাও, আয়ুষ্মান খুরানা, হৃতিক রোশন, অজয় দেবগন, অনিল কপূররা ছাত্রপীড়নের নিন্দা করেছেন। কিন্তু তিন খান এখনও নীরব।

 

সেই অর্থে বলিউডের প্রথম সারির সদস্যদের মধ্যে দীপিকা প্রথম প্রকাশ্যে ছাত্রদের পাশে দাঁড়ালেন। তিনি জানিয়েছেন, মানুষ যে নির্ভয়ে প্রতিবাদ করতে পারছে, এতে তিনি খুশি। একদল বলছেন, এ নিছকই পাবলিসিটি স্টান্ট। তাঁর ছবির প্রচার। ফলে সেই ছবি বয়কটের ডাক দিয়েছেন বহু মানুষ। একদল দীপিকার সমর্থনে মুখ খুলেছেন। তাঁদের দাবি, মেনস্ট্রিম বলিউডের মুখে সপাটে একটা চড় কষাতে পেরেছেন দীপিকা। আবার কারও কারও মতে, যদি দীপিকা সুযোগসন্ধানীও হন, বাকিদেরও সুযোগের অনুসন্ধান করতে তো কেউ বাধা দেয়নি। অর্থাৎ পক্ষে, বিপক্ষে মত দিচ্ছেন নেটিজেনরা।

 

এর আগে 'পদ্মাবত' ছবি ঘিরে করণী সেনার রোষের মুখে পড়েছিলেন দীপিকা। তাঁর নাক কেটে নেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়েছিল। তাঁর ছবি বয়কটের ডাক দেওয়া হয়েছিল সে বারও। এ বারের বয়কট আহ্বান নিয়ে দীপিকা কোনও প্রতিক্রিয়া এখনও জানাননি। এমনকি 'ছপাক' টিমের কোনও সদস্য এখনও পর্যন্ত এ নিয়ে মুখ খোলেননি। 

 

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

আমাদের এক্কেবারে নতুন POPxo Zodiac Collection মিস করবেন না যেন! এতে আছে নতুন সব নোটবুক, ফোন কভার এবং কফি মাগ, যেগুলো দারুণ ঝকঝকে তো বটেই, আর একেবারে আপনার কথা ভেবেই তৈরি করা হয়েছে। হুমম...আরও একটা এক্সাইটিং ব্যাপার হল, এখন আপনি পাবেন ২০% বাড়তি ছাড়ও। দেরি কীসের, এখনই POPxo.com/shopzodiac-এ যান আর আপনার এই বছরটা POPup করে ফেলুন!