শুভশ্রী নাকি মধুমিতা, মহালয়ায় বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে কোন দুর্গার দিকে এবার চোখ রাখবেন?

শুভশ্রী নাকি মধুমিতা, মহালয়ায় বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে কোন দুর্গার দিকে এবার চোখ রাখবেন?

শিশির ভেজা ভোর। হিমেল হাওয়ায় ভোরের ঘুমটা আরও গাঢ় হচ্ছে...না! বহু যুগের ওপারের গল্প নয়। এখনকার কলকাতার কথাই বলছি। যদিও শিশিরের শব্দ কেজো ভিড়ে হয়তো আপনি পাবেন না। আবার শরতের ভোরের হিম-হিম ভাবও হয়তো অনুভব করতে পারেন না অনেকেই। কিন্তু বছরের ৩৬৪ দিনের ভোরের থেকে একটা দিনকে আলাদা করা যায় অনায়াসে। কারণ ঘড়ির অ্যালার্মে নয়। সেদিন কলকাতার ঘুম ভাঙে রেডিওর শব্দে। সেদিন কলকাতার ঘুম ভাঙে বীরেন্দ্রকৃষ্ণ ভদ্রের স্তেত্রপাঠে। কারণ সেদিনটা মহালয়া।

আগের দিক রাত থেকে শুরু হবে রেডিওর যত্ন। চালিয়ে দেখে নেওয়া হবে বার কয়েক। ভোরবেলা মা ডেকে দেবে ঘুম থেকে। বড় ঘরে গিয়ে দেখব সবাই এসে গিয়েছে। হালকা একটা চাদর জড়িয়ে শুনতে বসব মহালয়া। একটু পরেই ঢুলতে শুরু করব। পুরোটা শোনা হবে না কোনওবার। এই নস্ট্যালজিয়ার সঙ্গে আপনি কি নিজেরও মিল পাচ্ছেন? তা হলে নিশ্চয়ই মনে করতে পারছেন, এর একটা সেকেন্ড পার্টও ছিল। কী বলুন তো? ঠিকই ধরেছেন, টিভির মহালয়া!

রেডিও পর্ব শেষ হলেই টিভি খুলে বসে যেত বাড়ির ছোটরা। বড়রা দৈনন্দিনের কাজের ফাঁকেও চোখ রাখতেন। কোন চ্যানেলে কে দুর্গা সাজলেন, তা নিয়ে প্রবল আলোচনা হত কয়েকদিন। অমুক চ্যানেলের দুর্গার (Durga) চোখটা দারুণ! তমুক চ্যানেলের অসুরের হাসিটা দেখেছিস? এসব আলোচনা প্রশ্রয় পেত বাঙালির ড্রইংরুমে। জেন ওয়াইয়েরও কিন্তু মহালয়া (mahalaya) নিয়ে আগ্রহ রয়েছে। কোন চ্যানেলে এবার কে দুর্গা, তা নিয়ে আলোচনা চলছে ২০১৯-এও।

 

মধুমিতা সরকার বাংলা টেলিভিশনের চেনা মুখ। তিনি এবার স্টার জলসার মহিষাসুরমর্দিনীতে দুর্গার ভূমিকায় পারফর্ম করবেন। এর আগে পার্বতীর ভূমিকায় তাঁকে দেখেছেন দর্শক। কিন্তু দুর্গা রূপে অনস্ক্রিন প্রথমবার। নাচ তাঁর অন্যতম পছন্দের বিষয়। মহিষাসুরমর্দিনী করতে গিয়ে নাচের বিভিন্ন স্টেপ কাজে লেগেছে। এই অনুষ্ঠানে শিবের ভূমিকায় দেখা যাবে জিতু কমলকে। পরিচালনার দায়িত্ব সামলেছেন কমলেশ্বর মুখোপাধ্যায়। মিউজিক অ্যারেঞ্জমেন্ট করেছেন দেবোজ্যোতি মিশ্র। মধুমিতা ছাড়াও রূকমা রায়, শ্যামৌপ্তি মুদলি, সুদীপ্তা, প্রত্য়ুষা, সোহিনীকে দেবীর নানা রূপে অভিনয় করতে দেখা যাবে। বিশেষ পারফরম্যান্স থাকবে ইন্দ্রাণী হালদারের।

অন্যদিকে মহালয়ার ভোরে জি বাংলায় দুর্গা রূপে দেখা যাবে শুভশ্রীকে। আগমনীর সুরে বাংলার মানুষ মেতে ওঠে দেবী বন্দনায়। ভক্তের ডাকে বৈশাখে আসেন দেবী গন্ধেশ্বরী। জৈষ্ঠে ফলহারিণী, আষাঢ়ে দেবী কামাক্ষ্যা, শ্রাবণে দেবী শাকম্ভরী, ভাদ্রে দেবী পার্বতী, আশ্বিনে দেবী দুর্গা… এভাবেই ১২ মাসে ১২ রূপে দেবী বরণের মাধ্যমে মহালয়ার অনুষ্ঠান সাজিয়েছেন জি বাংলা চ্যানেল কর্তৃপক্ষ। দিতিপ্রিয়া, মানালী, দেবাদৃতা, ঊষসী, বাসবদত্তার মতো অভিনেত্রীকে ১২ মাসের দুর্গার বিভিন্ন রূপে দেখা যাবে।   

 

এ ছাড়াও বিভিন্ন চ্যানেলে হবে মহালয়ার অনুষ্ঠান। কিন্তু মূল আকর্ষণে থাকছেন শুভশ্রী এবং মধুমিতা। একজন ফিল্মে, অন্যজন টেলিভিশনে দর্শকের ভালবাসা আদায় করে নিয়েছেন। এবার তাঁদেরই অন্য রূপে দেখার পালা। অবশ্য এর একটা বিরুদ্ধ মতও রয়েছে। দর্শকের একটা অংশ মনে করেন, এই অভিনেত্রীদের বিভিন্ন কাজ বছরভর দেখেন তাঁরা। মহিষাসুরমর্দিনীর অনুষ্ঠানেও কেন ফের তাঁদেরই দেখতে হবে? 

বিতর্ক থাকবেই। তবে তাতে টেলিভিশনে মহিষাসুরমর্দিনীর চাহিদা এতটুকু কমেনি বলে মনে করেন টলি পাড়ার একটা বড় অংশ। 

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

এসে গেল #POPxoEverydayBeauty - POPxo Shop-এর স্কিন, বাথ, বডি এবং হেয়ার প্রোডাক্টস নিয়ে, যা ব্যবহার করা ১০০% সহজ, ব্যবহার করতে মজাও লাগবে আবার উপকারও পাবেন! এই নতুন লঞ্চ সেলিব্রেট করতে প্রি অর্ডারের উপর এখন পাবেন ২৫% ছাড়ও। সুতরাং দেরি না করে শিগগিরই ক্লিক করুন POPxo.com/beautyshop-এ এবার আপনার রোজকার বিউটি রুটিন POP আপ করুন এক ধাক্কায়...