প্রয়াত প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ, শোকবিহ্বল সারা ভারত

প্রয়াত প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ, শোকবিহ্বল সারা ভারত

আচমকা হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে প্রয়াত হলেন প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ (Sushma Swaraj)। মঙ্গলবার রাতে দিল্লিতে ৬৭ বছর বয়সে জীবনাবসান হল তাঁর। রেখে গেলেন স্বামী এবং মেয়েকে। রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী সহ দেশের শীর্ষ নেতৃত্ব সুষমার প্রয়াণে সোশ্যাল মিডিয়ায় শোকবার্তা জ্ঞাপন করেছেন। আজ দুপুরে দিল্লিতেই তাঁর শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে।

কাশ্মীর নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর (Narendra Modi)র সিদ্ধান্তে খুশি ছিলেন সুষমা। গতকাল সন্ধেয় শেষ টুইট করেন তা নিয়েই। তার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই যে এমন দুঃসংবাদ পেতে হবে, তা ভাবেননি কেউই। রাত ১০টা নাগাদ আচমকাই অসুস্থ বোধ করায় দিল্লির এইমসে তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয়। স্মৃতি ইরানি, প্রকাশ জাভরেকরের মতো নেতারা তখনই পৌঁছন। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর সুষমাকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিত্সকরা। রাতে পৌঁছন বিজেপির (BJP) শীর্ষ নেতৃত্ব। সুষমার প্রয়াণে কংগ্রেস সহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলের সদস্যরাও শোকপ্রকাশ করেছেন। দুঃখপ্রকাশ করে টুইট করেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্য়মন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। 

সুষমার প্রয়াণে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী টুইট করেন, ‘অসাধারণ বক্তা এবং সাংসদ ছিলেন। দলের উন্নতিতে ওর বড় ভূমিকা ছিল। বিজেপির আদর্শ নিয়ে কখনও আপস করেননি। গত পাঁচ বছরে বিদেশমন্ত্রী (Foreign Minister) হিসেবে অক্লান্ত পরিশ্রম করেছিলেন। তা কখনও ভুলব না… এই দুঃসময়ে ওঁর পরিবারকে সমবেদনা জানাই।’ 

রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ লেখেন, ‘সুষমা স্বরাজের প্রয়াণে আমি শোকস্তব্ধ। দেশবাসী প্রিয় নেতাকে হারাল। কাজের জন্যই মানুষ চিরকাল ওঁকে মনে রাখবে।’ কংগ্রেস নেতা রাহুল গাঁধী টুইট করেন, ‘সুষমা স্বরাজের প্রয়াণের খবরে আমি শোকস্তব্ধ। ব্যতিক্রমী সাংসদ ছিলেন। রাজনীতির বাইরেও বন্ধুত্ব বজায় রাখতেন। ওঁর আত্মার শান্তি কামনা করি।’

দেশের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায় লেখেন, ‘সুষমার প্রয়াণের খবরে কতটা আঘাত পেয়েছি বলে বোঝাতে পারব না। অসাধারণ নেত্রী ছিলেন। ওঁর অভাব বোধ হবে।’

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্য়মন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় টুইট করেন, ‘সুযমাজির আকস্মিক প্রয়াণে আমি শোকস্তব্ধ। নয়ের দশক থেকে ওঁকে চিনতাম। আদর্শগত পার্থক্য থাকলেও অনেক ভাল সময় কাটিয়েছি। ওঁকে মিস করব। ওঁর পরিবারের প্রতি সমবেদনা রইল।’

বিদেশে বসবাসকারী ভারতীয় নাগরিকরা সমস্যায় পড়লেই সোশ্যাল মিডিয়াকে ব্যবহার করে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতেন সুষমা। বিদেশ মন্ত্রককে অন্য উচ্চতায় পৌঁছে দিয়েছিলেন তিনি। কিডনির সমস্যায় ভুগছিলেন গত কয়েক বছর। সে কারণেই সদ্য সমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেননি। তবে দলের কাজে নিরলস পরিশ্রমী ছিলেন। 

এবিভিপির সদস্য হিসেবে রাজনৈতিক জীবন শুরু করেন সুষমা। মাত্র ২৭ বছর বয়সে শিক্ষামন্ত্রীর পদ লাভ করেন। ১৯৯৮ সালে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীও হয়েছিলেন। দীর্ঘ কয়েক বছর লোকসভায় বিরোধী দলনেত্রী হিসেবে বিজেপির প্রধান মুখ ছিলেন তিনি। দলের অন্দরে লালকৃষ্ণ আডবাণীর ঘনিষ্ঠ বলেও পরিচিত ছিলেন। তাঁর প্রয়াণে শোকের ছায়া নেমে এসেছে রাজনৈতিক মহলে।

দেখে নিন প্রয়াত প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রীর সুষমা স্বরাজের কিছু ছবি। 

ইনস্টাগ্রাম
ইনস্টাগ্রাম
ইনস্টাগ্রাম
ইনস্টাগ্রাম
ইনস্টাগ্রাম
ইনস্টাগ্রাম
ভাইয়ের সঙ্গে ছোট্ট সুষমা (ইনস্টাগ্রাম)
জয়প্রকাশ নারায়ণের সঙ্গে (ইনস্টাগ্রাম)

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

আপনি যদি রংচঙে, মিষ্টি জিনিস কিনতে পছন্দ করেন, তা হলে POPxo Shop-এর কালেকশনে ঢুঁ মারুন। এখানে পাবেন মজার-মজার সব কফি মগ, মোবাইল কভার, কুশন, ল্যাপটপ স্লিভ ও আরও অনেক কিছু!