প্রসেনের কথায়, সুরে ‘গোয়েন্দা জুনিয়র’-এর গান গাইলেন সায়ন, দেখুন ভিডিও

প্রসেনের কথায়, সুরে ‘গোয়েন্দা জুনিয়র’-এর গান গাইলেন সায়ন, দেখুন ভিডিও

'একটা খুন এমন ভাবে ডিজাইন করা যাতে মৃত্যুর কারণটা ন্যাচেরাল কজ বলে মনে হয়'- ভিডিওর শুরুতেই ভেসে আসছে ‘গোয়েন্দা জুনিয়র’ অর্থাৎ ঋতব্রত (Rwitobroto) মুখোপাধ্যায়ের গলা। মৈনাক ভৌমিক পরিচালিত ‘গোয়েন্দা জুনিয়র’-এ ঋতব্রত যে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করছেন, তা আপনারা জানেন। সব কিছু ঠিক থাকলে আগামী ২০ সেপ্টেম্বর মুক্তি পাবে এই ছবি। তার আগে শুক্রবার মুক্তি পেল এই ছবির টাইটেল ট্র্যাক।

গানটি গেয়েছেন সায়ন মিত্র। কথা এবং সুরের দায়িত্ব ছিল প্রসেনের। তাঁর কথায়, "আমাকে একটা পেপি নাম্বার তৈরি করতে বলা হয়েছিল, যেটা এখনকার টিনএজারজের পছন্দ হবে। আমি নিশ্চিত এই গানটা সকলের ভাল লাগবে। পুজো অ্যান্থেমও হয়ে যাবে।" ভিডিওতে গ্রাফিক্সের মাধ্যমে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে গল্পের কিছু অংশ। 

‘গোয়েন্দা জুনিয়র’ (goyenda junior) আদতে এক টিনএজারের গোয়েন্দা হয়ে ওঠার গল্প। ঋতব্রত ব্যখ্যা দিয়েছিলেন, এই ছবিতে বয়সে ছোট একটি ছেলে গোয়েন্দা তৈরি হচ্ছে। ১৬ বছর বয়স। বোর্ডের পরীক্ষা দেবে। অনাথ। বাবা, মা দুর্ঘটনায় মারা গিয়েছেন। স্বভাবে মুখচোরা। খুব একটা কথা বলতে পছন্দ করে না। স্কুলে মার খেলেও প্রতিবাদ করে না। কিন্তু পড়াশোনায় ভাল আর গোয়েন্দা গল্প পড়তে ভালবাসে। ছেলেটির লভ ইন্টারেস্ট যে (এই চরিত্রে অভিনয় করেছেন অনুষা বিশ্বনাথন) তার বাবা (এই চরিত্রে রয়েছেন শান্তিলাল) কলকাতা পুলিশের ডিটেকটিভ। শহরে একটা মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। সেটার তদন্ত শুরু করেন কলকাতা পুলিশের (police) ওই গোয়েন্দা। এই ঘটনায় জড়িয়ে পড়ে দুই বন্ধুও। কলকাতাতেই মাত্র ১১দিনের মধ্যে এই ছবির শুটিং শেষ করেছে গোটা টিম।

 

এর আগে 'বর্ণপরিচয়'-এর মাধ্যমে গোয়েন্দা ছবি পরিচালনায় ডেবিউ করেছেন মৈনাক। তিনি বলেন, "থ্রিলার তৈরি করাটা আমার কাছে নতুন। তাও আগের ছবিটার সাফল্যের পর এটা তৈরি করা তুলনামূলক সহজ ছিল। লিড কাস্টের সঙ্গে আগেও কাজ করেছি। ফলে খুব স্মুথ কাজ হয়েছে। আমাদের পরিবারে বিশেষত ছোটদের মধ্যে টিনএজার ডিটেকটিভরা খুব পপুলার। পুজোর আগে সেই ফ্লেভারটা সেই এক্সাইটমেন্টটাই ফিরিয়ে আনতে চাইছি।" 

ঋতব্রতর কথায়, "স্ক্রিপ্ট অনেক চেঞ্জ হয়েছে। আমরা ১২ বা ১৩ নম্বর ড্রাফ্টে কাজ করেছি। স্মার্টলি রিটেন থ্রিলার। এডিটের পরে আরও স্মার্ট হয়েছে। এখানে আসলে টিএনজ সমস্যা, একটা স্কুলের ছেলের বড় হওয়া, ডিটেকটিভ হওয়া- শিক্ষক, ছাত্রের সম্পর্ক দেখানো হয়েছে।"

শান্তিলাল এই ছবিতে পুলিশের বড়কর্তার চরিত্রে অভিনয় করেছেন। লুক সেটের সময় তাঁর এক ছোটবেলার বন্ধু যিনি এখন রিয়েল লাইফে পুলিশকর্তা, তাঁকে ফোন করে সাজেশন নিয়েছিলেন বলে জানিয়েছিলেন ঋতব্রত। এই ছবিতে টিনএজার ছেলেটি উপস্থিত বুদ্ধিকে কাজে লাগায়। শেখায়, তাকিয়ে থাকা মানে আসলে কিন্তু দেখতে পাওয়া নয়। সে কারণেই তার একটা ডেজিগনেশও জুটে যায়, ‘গোয়েন্দা জুনিয়র’!

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

আপনি যদি রংচঙে, মিষ্টি জিনিস কিনতে পছন্দ করেন, তা হলে POPxo Shop-এর কালেকশনে ঢুঁ মারুন। এখানে পাবেন মজার-মজার সব কফি মগ, মোবাইল কভার, কুশন, ল্যাপটপ স্লিভ ও আরও অনেক কিছু!