কখনও সারা, কখনও অনন্যা! খেলছে কার্তিক, মারছে কার্তিক ছয়ের পর ছয় !

কখনও সারা, কখনও অনন্যা! খেলছে কার্তিক, মারছে কার্তিক ছয়ের পর ছয় !

শ্রীরাধিকা না চন্দ্রাবলী, কারে রাখি কারে ফেলি! না, উনি কাউকেই ফেলতে পারছেন না। আবার দু'জনকে একসঙ্গে রাখতেও পারছেন না। বলছি আমাদের নিজেই নিজেকে হার্টথ্রব ঘোষণা করা সোনার টুকরো ছেলে কার্তিক আরিয়ানের (Kartik Aaryan) কথা। ইন্ডাস্ট্রিতে এসেছেন এই মাত্র কয়েকদিন। ছবি করেছেন বা বলা চলে হিট ছবি মাত্তর দুটো। কিন্তু ছেলে আমাদের এক্কেবারে তৈরি হয়েই মাঠে নেমেছেন। প্রথমে শোনা গেল, তিনি আর সারা (Sara Ali Khan) নাকি ওই যে সাহেবি কায়দায় যাকে বলে 'সিয়িং ইচ আদার'। তার মানে যে তাঁরা সারাক্ষণ দুজনে দুজনের দিকে হাঁ করে তাকিয়ে বসে আছেন তা নয়। মানে ওই আর কী। প্রেম-প্রেম খেলার প্রথম পর্ব হল এই সিয়িং ইচ আদার। দু'জনে ডিনার খেতে গেলেন। সেই ভিডিও ভাইরাল হল। বেশ একটা সুখী-সুখী ব্যাপার। 





অমনই কোথা থেকে জানি পাকা আমের মতো টুপ করে খসে পড়লেন সারা আলি খান! তিনি হলেন বাপ কী বেটি। প্রথমে 'কেদারনাথ' করার সময় ক'দিন খুব সুশান্ত সিং রাজপুতের সঙ্গে আদিখ্যেতা করলেন। মানে এই একখান জবরদস্ত প্রেম হল আর কী গোছের ব্যাপার। তাপ্পর ঝপাং করে বলে বসলেন, কার্তিক আমার ক্রাশ! সবাই শুনে খুব ধন্য-ধন্য করল। বলল, ও তো নবাব বংশের মেয়ে। তাই মনের কথা একদম সবার সামনে বলতে লজ্জা পায় না। তা ভাল। মনের কথা বেশি চেপে না রাখাই ভাল। তা হলে রাতে ঘুম আসে না। 


কার্তিক আর সারা, সারা আর কার্তিক শুনতে-শুনতে কান যখন প্রায় পচে গেল, অনন্যা যখন মনের দুঃখে আরও রোগা হয়ে গেলেন তখন জানা গেল আরে... এত ছবির প্রোমোশন। সারা আর কার্তিক দুজনে করছেন 'লাভ আজ কল ২' তাই আজ কাল এদিক-সেদিক যাচ্ছেন। কিন্তু... ওই যে আমি সব সময় যা বলে থাকি। যো দিখতা হ্যায় উও হোতা নহি। আর যো হোতা হ্যায় উয়ো দিখতা নহি। অনন্যার প্রথম ছবি জলে তলিয়ে গেছে। আগামী দিনে তিনিও কার্তিকের সঙ্গে ছবি করছেন। সারার বাজার ভাল। তার কেদারনাথ আর সিম্বা দুটো ছবিই ভাল ব্যবসা করেছে। আর কার্তিক তো আছেনই। তিনি একবার অনন্যাকে ডেট করছেন। একবার বলছেন দু'জনের মধ্যে একজনকে বেছে নিলে ওকেই নেব। আবার ঈদের (Eid) দিন মুখে রুমাল বেঁধে সারার সঙ্গে লুকাছুপি খেলতে খেলতে মসজিদে যাচ্ছেন। আর এই সব দেখে অনন্যা রেগে গিয়ে আরও রোগা হয়ে যাচ্ছেন! 




 

 

 


View this post on Instagram


 

 

Eid Mubarak 💫


A post shared by KARTIK AARYAN (@kartikaaryan) on




তা বাপু তোমরা যে সারা আর কার্তিক, এসিপি প্রদুম্ন্য আর ইন্সপেক্টর দয়া নয় সেটা তো দিনের আলোর মতো পষ্ট বোঝা যাচ্ছে! তা হলে এত নাটক কেন হে? বলিউডের বাজার ভায়া। আজ আছ, কাল নাও থাকতে পার। এই সব হা-ডু-ডু না খেলে সোনামুখ করে একটু কাজে মন দাও দিকি! 


POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!
আপনি যদি রংচঙে, মিষ্টি জিনিস কিনতে পছন্দ করেন, তা হলে POPxo Shop-এর কালেকশনে ঢুঁ মারুন। এখানে পাবেন মজার-মজার সব কফি মগ, মোবাইল কভার, কুশন, ল্যাপটপ স্লিভ ও আরও অনেক কিছু!