কলকাতার ক্যাবারে কুইন মিস শেফালির প্রয়াণ

কলকাতার ক্যাবারে কুইন মিস শেফালির প্রয়াণ

প্রয়াত হলেন মিস শেফালি (Miss Shefali)। আজ ভোরে নিজের সোদপুরের বাড়িতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর।

শেফালির পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, দীর্ঘদিন ধরেই কিডনির সমস্যায় ভুগছিলেন তিনি। বয়সজনিত অসুস্থতাও ছিল। সে সব কারণে হাসপাতালেও ভর্তি হতে হয়েছিল তাঁকে। তবে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গিয়েছিলেন। হার্ট অ্যাটাক আচমকাই কেড়ে নিল প্রাণ। 

আরতি দাশ। আক্ষরিক অর্থে কলকাতার (kolkata) প্রথম বাঙালি বার ডান্সার। এই নামে চিনতে অসুবিধে হলেও মিস শেফালিকে (miss shefali) মনে পড়বে অনেকেরই। একটা সময় কলকাতায় সন্ধে নামত মিস শেফালির নামে। তাঁর আসল নাম যে আরতি তা হয়তো আজও অনেকেরই অজানা। স্ট্রাগলের ইতিহাস পেরিয়ে বৈভবের চূড়ায় পৌঁছেছিলেন তিনি। তাঁকে নিয়ে ওয়েব সিরিজের পরিকল্পনা করেছিলেন কঙ্কনা (Konkona) সেনশর্মা। পরিচালক হিসেবে ছয়ের দশকে বাংলার রাজনীতির অংশও কঙ্কনা রাখতে চেয়েছিলেন ওই ওয়েব সিরিজে।

আরতির জন্ম বাংলাদেশে। দেশভাগের সময় তিনি কলকাতায় আসেন। বেঁচে থাকার রসদ জোগাড় করতেই নাচ শুরু করেন। মাত্র ১৩ বছর বয়সে ফারপোজ হোটেলে প্রথম ক্য়াবারে নাচেন তিনি। তার পর ধীরে-ধীরে তৎকালীন কলকাতার সাংস্কৃতিক জগতের নামীদামি ব্যক্তিত্বদের চোখে পড়েন। অভিনেতা তরুণকুমারের হাত ধরে আসে প্রথম মঞ্চে অভিনয়ের সুযোগ। একে একে 'চৌরঙ্গী', 'সম্রাট সুন্দরী', 'সাহেব বিবি অউর গুলাম'-এর মতো ছবিতে অভিনয়ের সুযোগ পান আরতি। এমনকী, সত্যজিৎ রায়ও তাঁর দুটি ছবি 'প্রতিদ্বন্দ্বী' এবং 'সীমাবদ্ধ'তে আরতিকে কাস্ট করেছিলেন। হাওয়াইয়ান ডান্স দিয়ে বিখ্যাত হয়েছিলেন শেফালি। স্বয়ং উত্তমকুমারও তাঁর গুণমুগ্ধ ছিলেন। অবশ্য সে সময় তিনি কলকাতার 'কুইন অব ক্যাবারে'। 

আরও পড়ুন, “ডিপ্রেশন মৃত্যুও ডেকে আনতে পারে,” নিজের অভিজ্ঞতা শেয়ার করলেন ইমন চক্রবর্তী

আটের দশকে নাচ ছেড়ে দেন শেফালি। তারপর বহু সিনেমার অফার এলেও তিনি ফিরিয়ে দেন। কারণ? একবার এক সাক্ষাৎকারে শেফালি জানিয়েছিলেন, সকলেই ছবিতে তাঁর প্রোফেশনের গ্ল্যামারকে ব্যবহার করতে চাইতেন। চাইতেন, শরীরী প্রদর্শন। কিন্তু বহু স্ট্রাগলের পর নিজের পায়ের তলার মাটি শক্ত করে ফেলা শেফালির সেসব করতে আর মন চায়নি। আক্ষেপ ছিল, তাঁকে নিয়ে কেউ কোনও ছবির কথা ভাবেননি।

প্রফেশনাল কেরিয়ার শেষ করার পর অর্থাভাব ছিল তাঁর সঙ্গী। সে কারণেই অনেক সময় চিকিৎসারও ঠিক মতো সুযোগ পাননি বলে খবর। বহু অভিমান জমে ছিল তাঁর মনের ভিতর। সে সব জানতেন ঘনিষ্ঠরা। ইন্ডাস্ট্রির কারও সঙ্গে এ সব নিয়ে আলোচনা করতে স্বচ্ছন্দ ছিলেন না শেফালি। তবে কখনও কোনও সাক্ষাৎকারে বেরিয়ে আসত মনের কথা। শেফালির চলে যাওয়া মানে একটা যুগ হারিয়ে যাওয়া বলে মনে করছেন সিনে মহলের সদস্যরা। 

 

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

আমাদের এক্কেবারে নতুন POPxo Zodiac Collection মিস করবেন না যেন! এতে আছে নতুন সব নোটবুক, ফোন কভার এবং কফি মাগ, যেগুলো দারুণ ঝকঝকে তো বটেই, আর একেবারে আপনার কথা ভেবেই তৈরি করা হয়েছে। হুমম...আরও একটা এক্সাইটিং ব্যাপার হল, এখন আপনি পাবেন ২০% বাড়তি ছাড়ও। দেরি কীসের, এখনই POPxo.com/shopzodiac-এ যান আর আপনার এই বছরটা POPup করে ফেলুন!