'প্রবীণ' সাংসদ দেবের কাছ থেকে যা-যা শেখা উচিত 'নবীনা' সাংসদ নুসরত-মিমির!

'প্রবীণ' সাংসদ দেবের কাছ থেকে যা-যা শেখা উচিত 'নবীনা' সাংসদ নুসরত-মিমির!

নির্বাচনের ফল প্রকাশিত। আশামাফিক বিপুল ভোটে জয়লাভ করেছেন পশ্চিমবাংলার ভোটযুদ্ধের প্রায় সব নায়ক-নায়িকারাই! দেব (Dev), মিমি (Mimi), নুসরত (Nusrat) ইত্যাদি ইত্যাদি...না, আমরা মোটেও রাজনীতির কচকচিতে আগ্রহী নই। কে ভোট পেলেন, কেন পেলেন, কী করে পেলেন, তাঁরা আদৌ পাওয়ার যোগ্য কিনা, পেয়ে যে গেলেন এবার কী হবে, এঁরা আমাদের যোগ্য প্রতিনিধি কিনা...ওসব বড্ড শক্ত-শক্ত কথা! আমরা বুঝি না। আমরা নুসরত-মিমি-দেবকে চিনি পর্দার নায়িক-নায়িকা হিসেবে, তাঁদের নাচতে-গাইতে-মারপিট করতে দেখতে আমাদের ভারী ভাল লাগে! তখন তাঁরা সেটা ঠিকঠাক করতে পারছেন কিনা, তা না ভেবে যখন আমরা সিনেমার টিকিট কাটি, তখন এখন কেন জিতে তাঁরা কটা সাইকেল বিলোবেন আর কজন মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীকে বই-খাতা-পেনসিল কিনে দেবেন, তা নিয়ে কেন মাথা ঘামাতে যাব শুনি?


আমরা বরং আজ কথা বলতে চলেছি বা বলা ভাল একটু তুলনামূলক আলোচনা করতে চলেছি নায়কের সঙ্গে দুই নায়িকার! এবং আমরা প্রমাণ করে দেখিয়ে দেব যে, কেন পুরনো চাল ভাতে বাড়ে! একটু বুঝিয়ে বলা যাক। এঁরা সকলেই এই কমাস ভারী হাড়ভাঙা খাটুনি খেটেছেন! নিজের-নিজের এলাকার এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্ত চষে বেবিয়েছেন। জ্বালাময়ী বক্তব্য রেখেছেন একের পর এক জনসভায়। লোকের সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন, গুচ্ছের সেলফির আবদার মিটিয়েছেন হাসিমুখে। তারপর ভোট দিয়ে দায়িত্বশীল নাগরিকের মতো হাতের আঙুলটি ফোকাসে রেখে ইনস্টাগ্রামে ছবিও পোস্টিয়েছেন! আর কী করবেন বলুন তো?


কিন্তু এসব ছিল নির্বাচন-পূর্ববর্তী ব্যাপারস্যাপার। এখন এঁরা প্রত্যেকেই নির্বাচিত। সুতরাং, আরও একটু সামলেসুমলে চলতে হবে বই কী! তাই আমরা তাঁদের জন্য একটি মেড ইজি গাইড তৈরি করে দিয়েছি দেবের ইনস্টা প্রোফাইল ঘেঁটে। তিনি সাংসদভূমিতে প্রবীণ, নবীনদের, যাঁরা আবার তাঁর কোলিগও বটে, তিনি ছাড়া আর কে-ই বা শিখিয়েপড়িয়ে নেবেন!





ছবির নীচের লেখাটা পড়ে দেখুন! বুঝতে পারছেন, কেন বারবার পুনঃনির্বাচিত হন তিনি? এই পোস্টটি ভোটের রেজাল্ট বেরনোর দিন সকালের। দূরদর্শিতা ভাবুন একবার, দল নয়, রাজ্য নয়, ভাবছেন দেশের কথা! মিমি-নুসরত, বুঝতে পারছেন আশা করি? আপনাদের প্রোফাইলে কিন্তু সেদিন ছিল আপনাদের নিজেদেরই ছবি!




 

 

 


View this post on Instagram


 

 

🙏🏻


A post shared by Dev Adhikari (@imdevadhikari) on




১১ মে-র এই পোস্টটি দেখুন! একেই বলে শিল্প! কই, নুসরত-মিমি তো ভোটের দিনগুলোতে এত সহজ, সরল কথা লেখেননি! ঠিক আছে, বেটার লেট দ্যান নেভার! পরে লিখবেন কিন্তু! আহা, সামনেই বিধানসভা ভোট আছে না? 




 

 

 


View this post on Instagram


 

 

#Respect


A post shared by Dev Adhikari (@imdevadhikari) on




সাংসদ হিসেবে শুধু নিজের নির্বাচন কেন্দ্রের কথা মাথায় রাখলে চলবে না। ভাবতে হবে পুরো দেশের, দশের কথা। ঘূর্ণিঝড় ফণী নিয়ে অন্য কারও অ্যাকাউন্টে তো দেখিনি কোনও পোস্ট! নুসরত, মিমি, নোট নিচ্ছেন তো?




 

 

 


View this post on Instagram


 

 

 

A post shared by Dev Adhikari (@imdevadhikari) on




আর যদি লক্ষ্য হয় সাংসদ হওয়ার চেয়েও বড় কিছু, তা হলে তো আন্তর্জাতিক খবরাখবরও একটু রাখতে হবে! এই দেখুন, কেমন শ্রীলঙ্কা আতঙ্কবাদী হামলা নিয়ে দায়িত্বজ্ঞানসম্পন্ন বিশ্বনাগরিক হিসেবে পোস্ট করেছেন দেব! এদিকে নুসরত, মিমি এসব কিছুই করেননি!




 

 

 


View this post on Instagram


 

 

#campaigning Time... #ghatal


A post shared by Dev Adhikari (@imdevadhikari) on




সত্যি কথা বলছি, প্রচারের যত ছবি দেবের অ্যাকাউন্টে আছে, ততটা আর কারও নেই! মিমি, নুসরত শিখুন কী করে সোশ্যাল মিডিয়াকেও কাজে লাগানো যায়! যত ছবি, তত প্রচার, তত বেশি লাইক, তত বেশি ভোট! 


না, না, ঠিক আছে, আমরা বুঝতে পেরেছি যে, এটাই আপনাদের প্রথমবার। বারদুয়েক পুনঃনির্বাচিত হলে আপনারাও দেবের মতো এসব দিকে লক্ষ রাখবেন। আমরা শুধু একটু মনে করিয়ে দিলুম আর কী!


 


POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!



আপনি যদি রংচঙে, মিষ্টি জিনিস কিনতে পছন্দ করেন, তা হলে POPxo Shop-এর কালেকশনে ঢুঁ মারুন। এখানে পাবেন মজার-মজার সব কফি মগ, মোবাইল কভার, কুশন, ল্যাপটপ স্লিভ ও আরও অনেক কিছু!