রাজা রামমোহন রায় হলেন ব্রিটিশের চামচা, মন্তব্য পায়েল রোহাতগির!

রাজা রামমোহন রায় হলেন ব্রিটিশের চামচা, মন্তব্য পায়েল রোহাতগির!

হ্যাঁ, হ্যাঁ, আরও বলুন না, যা মনে আসে-প্রাণে চায় বলে যান। রামমোহন রায় (Raja Rammohan Roy) ব্রিটিশের চামচা, নেতাজি তোজোর কুকুর, রাখি সাওয়ন্ত হলেন কলিযুগের কল্কি অবতার, কুস্তিগীর সংগ্রাম সিংহ আসলে হনুমান-বালি-সুগ্রীব-অঙ্গদ-এর মিক্সড ব্রিড ইত্যাদি ইত্যাদি...মুখের তো কোনও ট্যাক্স নেই আর যত দূর জানি, টুইটার-ইনস্টা-ফেসবুকে লিখতে জুকেরবার্গ বা তাঁর বন্ধুরা কেউই পয়সা চান না! তাই আপনি বলে যান। ভগবান তো ভোটজনিত গোলযোগ শুনতে না পেরে বহুকাল আগেই নিদ্রা গিয়েছেন আর ভারতীয় জনতার টুপির ভিতরে শিং, জুতোর ভিতরে ক্ষুর আর পাতলুনের ভিতরে বরাবরই মোটা লেজ, তাই তাঁরাও চুপটি করেই থাকবে! পড়তেন পায়েল রোহাতগি (Payal Rohatgi) হাল্লা রাজার পাল্লায়, পুরো পিণ্ডি চটকে রেখে দিতেন!


ব্যাপারটা একটু খুলেই বলি! পায়েল রোহাতগি বলে এক অজানা-অচেনা অভিনেত্রী (ছিলেন, এখন আর নেই) আছেন না বলিউডে, তিনি মাঝে-মাঝে তাঁর বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টে বিনা পয়সায় বাণী বিতরণ করে থাকেন! তা লোকে সেসব দেখে ভারী খুশি হয়ে হাসে। লোকের আর কী, এখন মাগ্যিগণ্ডার বাজারে যেখানে স্ট্যান্ড আপ কমেডিয়ানের শো-ও পয়সা দিয়ে দেখে হাসতে হয়, সেখানে এমনি-এমনি হাসতে পেলে কার না ভাল লাগে! তা পায়েল দিদিমণি তো আর জানেন না যে, তিনি রাখি সাওয়ন্ত হওয়ার দৌড়ে অনেকটা এগিয়ে গিয়েছেন, তিনি বোধ হয় ভাবতেন যে, আহা রে, লোকে আমারে চাইছে, তাই তিনি আরও জোরে দৌড়তে শুরু করলেন আর এই করতে গিয়েই বাধল গন্ডগোল!


আজ টুইটারে পায়েল দিদি একখানা টুইট (Tweet) করেছেন। তাতে তিনি লিখেছেন যে, সতীদাহ ভারী ভাল  ব্যাপার আর রাজা রামমোহন রায় খামখা ব্রিটিশের চামচাগিরি করে সেটি বন্ধ করে দিয়েছিলেন। টুইট-গুলি নীচে দিলুম, দেখে আগে চক্ষুকর্ণের বিবাদভঞ্জন করে নিন, তারপর বাকি গপপো কইছি! 





আর দিতে পারছি না বাপু, রাগে গা রি-রি করছে! আসলে হয়েছে কী, পায়েল ম্যাডাম ভেবেছিলেন, দেশে বিজেপি সরকার ক্ষমতায় ফিরেছে এবার রাম রাজ্য হল বলে! তাই তিনিও ঘোলা জলে মাছ ঠিকঠাক ধরতে পারলে পরের বার নিশ্চয়ই অমেথি থেকে স্মৃতি ইরানির বদলে তাঁকেই লড়তে দেওয়া হবে! আর বাঙালিদের তিনি কোনওদিনই বিশেষ পছন্দ-টছন্দ করেন না! সেই কোন কালে তাঁর টগবগে প্রেম রাহুল মহাজন তাঁকে ছেড়ে ডিম্পি গঙ্গোপাধ্যায়কে বিয়ে করে ফেলেছিলেন, তা এখনও তিরের মতো বুকে বিঁধে আছে না? 


তা বলে সো-জা রামমোহন মোহনলাল মগনলাল সব লালে লাল করে দেবেন! সতী যদি অতই ভাল ব্যাপার হয়, তা হলে যান না, সোজা গিয়ে নিজেই না হয় একবার...


 


ছবি সৌজন্য: ইনস্টাগ্রামউইকিপিডিয়া


POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!



আপনি যদি রংচঙে, মিষ্টি জিনিস কিনতে পছন্দ করেন, তা হলে POPxo Shop-এর কালেকশনে ঢুঁ মারুন। এখানে পাবেন মজার-মজার সব কফি মগ, মোবাইল কভার, কুশন, ল্যাপটপ স্লিভ ও আরও অনেক কিছু!