'আলাদা থাকা কষ্টকর', লকডাউনে ঘনিষ্ঠ ছবি শেয়ার করে সোহিনীর প্রতি বার্তা রণজয়ের

'আলাদা থাকা কষ্টকর', লকডাউনে ঘনিষ্ঠ ছবি শেয়ার করে সোহিনীর প্রতি বার্তা রণজয়ের

তাঁরা সহকর্মী। তাঁরা বন্ধু। তাঁরা অর্থাৎ টলিউড অভিনেত্রী সোহিনী (sohini) সরকার এবং অভিনেতা রণজয় (Rano Joy)। আর এই বন্ধুত্বটা যে স্পেশ্যাল তা প্রথম থেকেই স্বীকার করে নিয়েছেন এই জুটি।

সোহিনী-রণজয় যে প্রেম করছেন তা আর টলি পাড়ায় নতুন খবর নয়। একে অপরের বাড়ি গিয়ে একসঙ্গে থাকেনও এই জুটি। কিছুদিন আগেই একসঙ্গে জয়পুর, আগ্রা, রাজস্থান বেড়াতে গিয়েছিলেন। সে ছবিও শেয়ার করেছিলেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। কিন্তু আপাতত তাঁরা আলাদা।

না! সম্পর্কে আলাদা নন। কিন্তু করোনা আতঙ্কের জন্য গৃহবন্দি দুজনেই। লকডাউন পরিস্থিতি আলাদা করেছে দুজনকে। সেই পরিস্থিতি ব্যখ্যা করতেই নিজেদের একটা ছবি সোশ্যাল ওয়ালে পোস্ট করলেন রণজয়। সঙ্গে ক্যাপশনে লিখলেন, "একসঙ্গে থাকাটা কতটা কঠিন, কিন্তু আলাদা থাকা তার থেকেও বেশি কষ্টকর।"

সোহিনী-রণজয়ের বন্ধুত্বের শুরু সেই ২০১৩-এ। তারপর একসঙ্গে ফোটোশুট করলেও অভিনয়ের সুযোগ হয়নি। সে সুযোগ এল অয়ন চক্রবর্তী 'জাজমেন্ট ডে' সিরিজের শুটিংয়ে। দার্জিলিংয়ে। আর শৈল শহরেই এই প্রেমের শুরু।

 

শুটিংয়ের সময় নার্ভের সমস্যায় গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন সোহিনী। অ্যাম্বুলেন্সে করে শুটিংয়ের লোকেশনে যেতে হত তাঁকে। সে সময় পাশে থেকেছেন রণজয়। আর সেই পাশে থাকা বন্ধুত্বটাই বদলে গিয়েছে প্রেমের ভাষায়। আর গত কয়েক মাস তা চুটিয়ে উপভোগ করছেন দুজনেই।

সোহিনী বা রণজয় কারও এটা প্রথম প্রেম নয়। এর আগে বহু সম্পর্ক এসেছে জীবনে। কিছুদিন আগেই অভিনেতা অনির্বাণ ভট্টাচার্যের সঙ্গে সোহিনীর প্রেমের গুঞ্জনে সরগরম ছিল ইন্ডাস্ট্রি। যদিও তা নিয়ে প্রকাশ্যে কেউ কিছু বললেননি। রণজয়েরও আগে অন্য সম্পর্ক ছিল। কিন্তু এবার তাঁরা দুজনেই বেশ সিরিয়াস। একে অন্যের প্রতি চূড়ান্ত পজেসিভ। কিন্তু এখনই লিভ-ইন করতে রাজি নন। সম্পর্কের আরও বয়স বাড়তে দিতে চান তাঁরা। তারপর পরিণতির কথা ভাববেন বলে ঘনিষ্ঠ মহলে জানিয়েছেন দুই শিল্পী। 

কিছুদিন আগে রণজয়ের জন্মদিনেও একা হাতে সব আয়োজন করেছিলেন সোহিনী। সেই মুহূর্তের ছবিও সোশ্যাল ওয়ালে পছন্দ করেছেন অনুরাগীরা। কিন্তু এখনও যেন এই সম্পর্ক নিয়ে টলি পাড়ার অন্দরেই কিছু প্রশ্ন রয়েছে। অনেকেই বলছেন, এই সম্পর্ক দীর্ঘস্থায়ী হবে না। এ হল ক্ষণিকের ভাল লাগা। আবার কারও কারও মতে, এখনও পর্যন্ত কেরিয়ারে রণজয়ের তুলনায় সোহিনী অনেক বেশি সফল। নিজের অভিনয় সত্ত্বা একাধিকবার প্রমাণ করেছেন সোহিনী। তাঁর সিভিতে একের পর এক মনে রাখার মতো ছবি রয়েছে। এমনকি কেরিয়ারের প্রথম দিকে টেলিভিশনেও তিনি সমান সফল। অন্যদিকে রণজয় অভিনেতা হিসেবে এখনও আলাদা কোনও জায়গা তৈরি করতে পারেননি বলেই মনে করেন ইন্ডাস্ট্রির একটা বড় অংশ। এই বিষয়টা নিয়েই ইগো ক্ল্যাশ হতে পারে বলে মনে করছেন অনেকে। আর তাতেই সম্পর্কে ভাঙনের আশঙ্কা বাড়বে বলে মনে করেন তাঁরা। 

যদিও কোনও নেগেটিভ বক্তব্যকে পাত্তা দিতে নারাজ সোহিনী-রণজয়। তাঁদের জীবন, তাঁদের সম্পর্ক, সুতরাং তা নিয়ে অন্য কারও মাথা ব্যথা থাকা উচিত নয় বলে মনে করেন তাঁরা। তাই কোনও নেগেটিভিকে পাত্তা না দিয়ে আপাতত প্রেমে মজে রয়েছে এই জুটি। রণজয়ের শেয়ার করা ছবি ফের তারই প্রমাণ দিল। 

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!