মেয়েদের বলেছি, পিরিয়ড হলেও ঠাকুরকে ধূপ দেবে, ট্যাবু ভেঙে বললেন সোমা বন্দ্যোপাধ্যায়

মেয়েদের বলেছি, পিরিয়ড হলেও ঠাকুরকে ধূপ দেবে, ট্যাবু ভেঙে বললেন সোমা বন্দ্যোপাধ্যায়

অরিত্র মুখোপাধ্যায়ের পরিচালনায় ‘ব্রহ্মা জানেন গোপন কম্মটি’ (Brahma Janen Gopon Kommoti( মুক্তি পাবে আগামী ৬ মার্চ। মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করেছেন ঋতাভরী চক্রবর্তী। সোমা (Soma) বন্দ্যোপাধ্যায় রয়েছেন খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায়। সিরিয়ালের জনপ্রিয় মুখ সোমা বহুদিন পরে বড়পর্দায় ফিরলেন। ছবি মুক্তির আগে মন খুলে আড্ডা দিলেন অভিনেত্রী।

বহুদিন পরে বড়পর্দার অফার…

হ্যাঁ। অনেকদিন পরে। আমি তো সিরিয়ালে নিয়মিত কাজ করি। থিয়েটারও করেছি। ঋতুপর্ণ ঘোষ, তরুণ মজুমদার, গৌতম ঘোষের মতো পরিচালকের সঙ্গে কাজ করেছি। শিবুকে (শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়) আমি ছোটবেলা থেকে চিনি। ওর হাউজ উইন্ডোজ থেকে অরিত্র যথন প্রথম সাবজেক্টটা নিয়ে এল আমার কাছে, গল্পটা পড়ে আমি বলেছিলাম, আমি ছবিটা করব। আসলে আমরা শিল্পীরা ভাল স্ক্রিপ্টের জন্য তো মুখিয়ে থাকি। এটা তেমনই একটা স্ক্রিপ্ট।

এক মহিলা পুরোহিতের গল্প। তার থেকেও বলা ভাল, পিরিয়ড নিয়ে মেয়েদের বিভিন্ন ট্যাবু বা সামাজিক ভাবে মেয়েদের নিয়ে বিভিন্ন ট্যাবু ভাঙার গল্প…

(প্রশ্ন শেষ না হতেই) আসলে আমদের মধ্যে মিথ্যেটা পোষণ করতে করতে কখন সেটাই সত্যি হয়ে গিয়েছে। সত্যি বলে মিথ্যেটাকে ধরে নিয়েছি আমরা। ২০২০-তে দাঁড়িয়ে যদি এগুলো নিয়ে কথা না বলি, এখনও যদি মেয়েদের না শেখাই আমরা, তাহলে আর কবে শেখাব?

ছবিটা করার আগে কখনও এভাবে ভেবেছিলেন?

ছবির একটি দৃশ্যে সোমা, মানসী সহ অন্যান্যরা।

না! এটা আমি নিজেও ভেবেছি। আমি তো অশিক্ষিত নই। তাহলে আগে কখনও ভেবে দেখিনি কেন? নন্দিনীদি, মানে বাস্তবে যিনি পৌরহিত্য করেন, ওঁর সঙ্গে কথা বলার পর মনে হয়েছে, অনেক আগে নিজের বাড়িটা কেন ঠিক করিনি?

এখন মেয়েদের কী শেখাচ্ছেন?

আমার বড় মেয়ে সেকেন্ড ইয়ারে পড়ে। আর ছোট মেয়ের ক্লাস এইট। শুটিং করতে করতেই ওদের বলেছি, পিরিয়ড হলেও বাড়িতে ঠাকুরের সামনে ধূপ দেবে তোমরা। আমার বাড়ির কাজে সাহায্য করে যে মেয়েটি, সে এসবে আপত্তি করেছিল। ওকে বলেছি, তোমাকে একটা ছবি দেখাব। তারপর ভাববে তুমি।

মেয়েরা এই প্রস্তাব মেনে নিয়েছে?

হ্যাঁ, আমার মেয়েরা গ্ল্যাডলি অ্যাকসেপ্ট করেছে। ওদের বিয়ে মহিলা পুরোহিত দিয়েই দেওয়াব। কন্যা তো গরু নয়, যে দান করা যাবে। ফলে আমার কন্যাদের দান করব না। আর সিঁদুরদানের সময় জামাইদের মাথাতেও সিঁদুরের টিপ দিয়ে দেবে আমার মেয়েরা।

এ তো গেল বাড়ির মেয়েদের কথা। বাড়ির পুরুষ এই ভাবনাকে কীভাবে গ্রহণ করলেন?

আমার স্বামী অত্যন্ত লিবারাল। এই ধারণার সঙ্গে অ্যাডজাস্ট করতে ওঁর কোনও অসুবিধে নেই। বাকিরা ছবিটা দেখুন। আর আমার বাড়ির কাজে সাহায্য করে যে মেয়েরা, তার মধ্যে একজন একদম মানতে চাইছে না। আর একজন একটু হলেও বুঝেছে। আর তাতে আমার মনে হচ্ছে, এক চুল হলেও এগোতে পেরেছি।

শুটিং শুরু আগে রিহার্সাল করেছিলেন?

হ্যাঁ, অবশ্যই। স্ক্রিপ্ট পড়েছি। আমরা একসঙ্গে বসেছি। ফ্লোরে গিয়েও রিহার্সাল করতাম। অরিত্র হয়তো বলল, দিদি টানা যাব। আমি বললাম, আচ্ছা চল, দেখা যাক। অনেকদিন পরে দারুণ একটা কাজ করলাম।

অরিত্রর এটাই পরিচালক হিসেবে প্রথম ছবি। অসুবিধে হয়নি?

একেবারেই না। নতুনদের সঙ্গে যত কাজ করি আমি, তত শিখি। ও যখন প্রথম গল্পটা নিয়ে এল, আমি জিজ্ঞেস করেছিলাম, আমি কেন? আমাকে কেন ভেবেছ? ও বলেছিল, তোমার কাজ অনেকদিন ধরে দেখছি। ইচ্ছে ছিল তোমার সঙ্গে কাজ করার। তুমি পারবে...। আর ওদের পুরো টিম ইয়ং। এত অরগানাইজড, খুব ভাল লেগেছে কাজ করে।

এতদিন পরে বড় চরিত্র, ভাল চরিত্র। এমন সুযোগ আরও পাওয়া উচিত ছিল বলে মনে হয় না?

ছবির দৃশ্যে সোমা।

(হাসি) মনে তো হয়। কোনও চরিত্র দেখে মনে হয়, এই চরিত্রটাতে তো আমাকেও ভাবতে পারতেন। কেন ভাবেননি? ভীষণ আক্ষেপ রয়েছে। দেখুন, সিরিয়াল আমাকে অনেক দিয়েছে। কিন্তু ছবিতে আমাকে আরও নিংড়ে ব্যবহার করা উচিত ছিল বলে মনে হয়।

শিবপ্রসাদ-নন্দিতার প্রযোজনায় কাজ করলেন। এবার কি পরিচালনায় কাজের অপেক্ষায়?

(হা হা হা) আমি বিশ্বাস করি, কোনও সময় শিবু নিশ্চয়ই বলবে, দিদি এটা তোমাকে করতে হবে...।

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!

২০২০ শুরু করুন আমাদের দারুণ দারুণ প্ল্যানার আর স্টেটমেন্ট সোয়েটশার্ট দিয়ে। এগুলো সবকটাই আপনারই মতো একশ শতাংশ মজার এবং অসাধারণ! ওহ হ্যাঁ, শুধুমাত্র আপনার জন্য রয়েছে ২০ শতাংশ ছাড়ের ব্যবস্থাও। দেরি কিসের আর, এখনই POPxo.com/shop থেকে কেনাকাটা সেরে ফেলুন আর নিজেকে আরেকটু পপ আপ করে ফেলুন!