দীর্ঘদিন আলাদা হয়ে যাওয়া প্রসেনজিৎ-জয়ার দেখা হল এক 'রবিবার'-এ, কী হল তারপর?

দীর্ঘদিন আলাদা হয়ে যাওয়া প্রসেনজিৎ-জয়ার দেখা হল এক 'রবিবার'-এ, কী হল তারপর?

"তোমার অনেক হিংস্র চেহারা দেখেছি তো", বক্তা জয়া (Jaya) আহসান।

"আমি ভাল নেই সায়নী, একদম ভাল নেই", বক্তা প্রসেনজিৎ (Prosenjit) চট্টোপাধ্যায়।

না! একেবারেই রিয়েল লাইফের ঘটনা ভাববেন না। এ হল রিল লাইফ। এক পাল্টে যাওয়া 'রবিবার' (Robibaar)-এর গল্প। যা বড়পর্দায় বলবেন পরিচালক অতনু ঘোষ। সেই গল্পে যোগ্য সঙ্গত করেছেন প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় এবং জয়া আহসান। সদ্য মুক্তি পেল এই ছবির টিজার। একা প্ল্যাটফর্মে বসে থাকা জয়া। সামনে দিয়ে দ্রুত গতিতে চলে যাওয়া ট্রেন। মনখারাপের নকশা প্রসেনজিতের চোখেমুখে। একে অন্যের হাত ধরে বাঁচতে চাওয়ার ইঙ্গিত- এই ধরনের অনেক মুহূর্ত ধরা রয়েছে টিজারে। যা দেখার পর ছবি মুক্তির জন্য অপেক্ষা শুরু করেছেন সিনেপ্রেমীরা।  

১৫ বছর আগে আলাদা হয়ে যাওয়া যুগলের কোনও একটি রবিবারে ফের দেখা হয়। ফেলে আসা জীবনের মান অভিমান নাকি ভবিষ্যতের এগিয়ে চলার মুহূর্ত নিয়ে ভাববেন তাঁরা? কোন সুতোতে বেঁধে রাখবেন এতদিনের বলতে না পারা কথাদের? সে সব নিয়েই এগোবে চিত্রনাট্য। জয়ার চরিত্রের নাম সায়নী। পেশায় কর্পোরেট ফার্মের লিগ্যাল অফিসার। প্রসেনজিতের চরিত্রের নাম অসীমাভ। এক অসাধারণ মানুষ। কিন্তু জীবনটা ঠিক পথে চালাতে পারেননি তিনি। দু'জনের জীবনেরই ক্রাইসিস রয়েছে। সেটা কি আদৌ পেরিয়ে যেতে পারবেন তাঁরা? আসলে একসঙ্গে থাকাটা আর সম্ভব হয়নি। অথচ আলাদা থেকেও কি ভাল আছেন তাঁরা? রবিবারে হঠাৎ দেখা হয়ে যাওয়ার পর উঠে আসবে অতীত স্মৃতি। এই ছবিতেই প্রথমবার একসঙ্গে স্ক্রিন শেয়ার করবেন প্রসেনজিৎ এবং জয়া।

 

এর আগে অতনুর সঙ্গে 'ময়ূরাক্ষী' করেছেন প্রসেনজিৎ। সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় ছিলেন সে ছবির অন্যতম স্তম্ভ। বাবা-ছেলের এক অন্যরকম সম্পর্কের স্তর সে ছবিতে বহু যত্নে এঁকেছিলেন অতনু। আর প্রসেনজিৎও যেন চেনা পাড়া ছেড়ে বহুদূরে। অর্থাৎ এমন প্রসেনজিৎকে অনেকদিন দেখেনি বাংলা ইন্ডাস্ট্রি। একটা বড় অংশের মত ছিল, এমন বুম্বাদাকেই তো চাই।

অন্যদিকে অতনুর পরিচালনায় 'বিনি সুতোয়'-এ অভিনয় করেছেন জয়া। সেখানে স্ক্রিন শেয়ার করেছেন আরও এক অসামান্য অভিনেতা ঋত্বিক চক্রবর্তীর সঙ্গে। সে ছবি রয়েছে মুক্তির অপেক্ষায়। দীর্ঘদিন ধরেই পশ্চিমবাংলায় কাজ করছেন অভিনেত্রী। শুরু হয়েছিল অরিন্দম শীলের 'আবর্ত'র হাত ধরে। তারপর একে একে কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায়, বিরসা দাশগুপ্ত, সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের মতো পরিচালকের ছবিতে কাজ করেছেন। জয়ার ছবির জন্য অপেক্ষা করে থাকেন পশ্চিমবঙ্গের দর্শক। কিন্তু প্রসেনজিতের সঙ্গে ফ্রেম শেয়ার এতদিন অধরা ছিল। এবার সত্যি হবে সেই স্বপ্ন।

প্রসেনজিৎ আগেই বলেছিলেন, "অতনুর সঙ্গে ময়ুরাক্ষীর পর এটা আমার দ্বিতীয় ছবি। আমি খুব খুশি। আর জয়ার সঙ্গে কাজ করাটা অনেকদিন ধরে ডিউ ছিল। আমি সঠিক চিত্রনাট্য আর সঠিক পরিচালকের জন্য অপেক্ষা করছিলাম। যিনি সঠিক ভাবে কাজটা করতে পারবেন। আর সেটাই হল 'রবিবার'। দুটো চরিত্রের জার্নি। গল্প আর স্ক্রিপ্টও আধুনিক। এই ছবিতে কাজ করতে পেরে খুব ভাল লাগছে। আমার কেরিয়ারের খুব গুরুত্বপূর্ণ ছবি...। জয়ার কথায়, "এই ছবিটা আমার কাছে অনেক কারণে স্পেশ্যাল। প্রথমত এটা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে আমার প্রথম কাজ। আর বিনি সুতোয় করার পর অতনুদার সঙ্গে আবার কাজ করলাম।" সব কিছু ঠিক থাকলে আগামী ২৭ ডিসেম্বর মুক্তি পাবে এই ছবি।

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

এসে গেল #POPxoEverydayBeauty - POPxo-র স্কিন, বাথ, বডি এবং হেয়ার প্রোডাক্টস নিয়ে, যা ব্যবহার করা ১০০% সহজ, ব্যবহার করতে মজাও লাগবে আবার উপকারও পাবেন! এই নতুন লঞ্চ সেলিব্রেট করতে প্রি অর্ডারের উপর এখন পাবেন ২৫% ছাড়ও। সুতরাং দেরি না করে শিগগিরই ক্লিক করুন POPxo.com/beautyshop-এ এবার আপনার রোজকার বিউটি রুটিন POP আপ করুন এক ধাক্কায়..