সম্পর্কের ভিতকে মজবুত করতে মাথায় রাখুন এই টিপসগুলি (tips)। in bengali | POPxo

গল্প করলে তবেই না পার্টনারের সঙ্গে দূরত্ব ঘুচবে! তাই এই টিপসগুলি মাথায় রাখতে ভুলবেন না

গল্প করলে তবেই না পার্টনারের সঙ্গে দূরত্ব ঘুচবে! তাই এই টিপসগুলি মাথায় রাখতে ভুলবেন না

বিয়ের পরে দু'জন অচেনা মানুষ হঠাৎ করেই অনেকটা কাছাকাছি এসে যান ঠিকই। কিন্তু একে অপরকে ভাল করে চিনে উঠতে অনেকটাই সময় লেগে যায়। ধীরে ধীরে শুরু হওয়া গল্প-আড্ডার ছলে স্বামী-স্ত্রী একে অপরের চিনতে শুরু করেন, ছোট্ট ছোট্ট পায়ে এগতে এগতে এক সময় গভীরতা খুঁজে পায় তাঁদের প্রেম (Relationship)। তাই তো লজ্জার ঘেরাটোপ উপেক্ষা করে দু'জনকেই এগিয়ে আসতে হবে। সুযোগ পেলেই চুটিয়ে গল্প জুড়ে দিতে হবে। সব গল্পেরই যে মানে থাকবে, এমন নয়! তবুও কথা বলে যেতে হবে, তবেই না মনের মানুষের মনের সন্ধান মিলবে। কিন্তু পার্টনারের সঙ্গে আরও ভাল ভাবে কমিউনিকেট করবেন কীভাবে, তাই ভাবছেন? এই টিপসগুলি (tips) মাথায় রাখুন। দেখবেন, দূরত্ব ঘুচতে সময় লাগবে না।

১. সুযোগ পেলেই গল্প জুড়ে দিন

কাজের ফাঁকে সুযোগ পেলেই পার্টনারকে অল্প-বিস্তর মেসেজ করুন। কাজ কেমন চলছে। তিনি খেয়েছেন কিনা, এই সব নানা প্রশ্ন দিয়ে কথোপকথন শুরু করতেই পারেন। দু'জনের হাতে সময় থাকলে মিনিট পাঁচেক গল্প করুন, তাতে কাজের একঘেয়েমি তো কাটবেই, সঙ্গে আপনাদের দূরত্বও আরও একটু কমবে বই কী! তবে পার্টনার ব্যস্ত আছেন কিনা সেটা জেনে নিতে ভুলবেন না যেন! ফ্রি থাকলে তবেই ফোন-মেসেজ করবেন, নচেৎ নয়। এক্ষেত্রে আরও একটা টিপস মাথায় রাখা জরুরি। কী টিপস? অফিস থেকে বাড়ি ফিরে স্মার্টফোনে মুখ গুঁজে থাকবেন না প্লিজ। বরং গরম গরম এক পেয়ালা চা বা কফি খেতে খেতে দু'জনে মিলে একটু গল্প করুন। সুখ-দুঃখ শেয়ার করুন, তবেই না আপনাদের মাঝে কমিউনিকেশন বাড়বে, আর এমনটা হলেই তো সম্পর্কের ভিত আরও শক্ত হবে।

২. শুনুন বেশি, বলুন কম

মনে রাখবেন, 'কমিউনিকেশন ইজ এ টু ওয়ে চ্যানেল'। তাই শুধু আপনিই কথা বলে গেলেন, আর পার্টনার মুখে কুলুপ এঁটে বসে থাকলো, এমনটা হলে কিন্তু চলবে না। বরং নিজের মনের কথা বলার পাশাপাশি বরের কথাও মন দিয়ে শুনতে হবে। প্রয়োজনে নিজের মতামত যেমন দিতে হবে, তেমনই পার্টনারের সাজেশনও গুরুত্ব দিয়ে শুনতে হবে, তবেই না একে অপরের চিন্তা-ভাবনা সম্পর্কে ধারণা করতে পারবেন, বুঝতে পারবেন মানুষটা আদতে কেমন।

৩. গল্প করার সময় মোবাইল ফোন দূরে রাখুন

আড্ডা মারার সময় মোবাইল ফোনটিকে দয়া করে সাইলেন্ট মোডে রাখতে ভুলবেন না যেন! শুধু তাই নয়, সে সময় কোনও গ্যাজেটই ব্যবহার করা চলবে না। বরং একে অপরের পুরো সময়টা দিতে হবে। কারণ, হাতের কাছে ফোন থাকলে নোটিফিকেশনের চক্করে গল্পে বাঁধা পড়বেই। ফলে আড্ডার মেজাজটাই যে ফিকে হয়ে যাবে। তাই গল্প চলাকালীন ফোনের কথাটা ভুলে যাওয়াটাই বুদ্ধিমানের কাজ।

৪. মনের কথা বুঝে ফেলাটা সহজ কাজ নয়

কারও মনের কথা বুঝে ফেলার ক্ষমতা কিন্তু আমাদের নেই। তাই আপনার পার্টনার, আপনার মনের সব কথা বুঝে ফেলবেন, এমনটা ভেবে নেওয়াটা কিন্তু বোকামি। তাই মনের কথা খুলে বলার অভ্যাস করুন। পার্টনারকেও একই পারামর্শ দিন। তাতে ভুল বোঝাবুঝি মাথা চাড়া দিয়ে ওঠার আশঙ্কা কমবে। সেই সঙ্গে কমিউনিকেশন স্কিলেরও উন্নতি ঘটবে। ফলে দূরত্ব কমতে সময় লাগবে না।

৫. মাথা ঠান্ডা করে সব ঝামেলা মেটান

আড্ডা চলাকালীন স্বামীর কোনও কথা শুনে আপনার কান-মাথা গরম হয়ে যাওয়ার মতো ঘটনা যেমন ঘটতে পারে, তেমনই নানা সমস্যার কথাও উঠে আসতে পারে। সে সময় মাথা ঠান্ডা রেখে গল্প চালিয়ে যাওয়াটাই বুদ্ধিমানের কাজ। তাতে গল্পের ছলে সমস্যার সমাধান যেমন বেরিয়ে আসবে, তেমনি পার্টনারের সঙ্গে ঝগড়া বেঁধে যাওয়ার আশঙ্কাও কমবে। বরের কোনও কথা শুনে কখনও সখনও বিরক্ত লাগতেই পারে। কিন্তু তাই বলে গল্প চলাকালীন রাগারাগি করবেন না যেন! তাতে করে অভিমান দানা বাঁধবে, যার লেজুড় হয়ে আসবে মনোমালিন্য। ফলে সমস্যা বাড়বে বই কী!

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

এসে গেল #POPxoEverydayBeauty - POPxo Shop-এর স্কিন, বাথ, বডি এবং হেয়ার প্রোডাক্টস নিয়ে, যা ব্যবহার করা ১০০% সহজ, ব্যবহার করতে মজাও লাগবে আবার উপকারও পাবেন! এই নতুন লঞ্চ সেলিব্রেট করতে প্রি অর্ডারের উপর এখন পাবেন ২৫% ছাড়ও। সুতরাং দেরি না করে শিগগিরই ক্লিক করুন POPxo.com/beautyshop-এ এবার আপনার রোজকার বিউটি রুটিন POP আপ করুন এক ধাক্কায়...