ওয়েলনেস

করোনা সংক্রমণ এড়াতে হার্টের রোগীদের বিশেষ কী কী সতর্কতার প্রয়োজন?

Swaralipi BhattacharyyaSwaralipi Bhattacharyya  |  Mar 26, 2020
করোনা সংক্রমণ এড়াতে হার্টের রোগীদের বিশেষ কী কী সতর্কতার প্রয়োজন?

লকডাইন চলছে গোটা দেশ জুড়ে। জনসংখ্যার নিরিখে ভারত যেখানে রয়েছে, সেখানে করোনা (coronavirus) আটকানোর একমাত্র রাস্তা গৃহবন্দি দশা। অন্তত এমনটাই মনে করেছে দেশের সরকার। সে কারণে অত্যাবশকীয় পণ্য ছাড়া বন্ধ রয়েছে সব কিছুই। সকলেই বাড়িতে রয়েছেন। তবুও ভয় গ্রাস করছে আমাদের।

বিগত কয়েক দিন ধরে বার বার বলা হচ্ছে, ইমিউনিটি সিস্টেম ভাল হলে, ভাইরাসের সংক্রমণ হওয়ার আশঙ্কা কম। সে কারণেই বয়স্ক এং শিশুদের নিয়ে চিন্তা বেশি। কারণ ইমিউনিটি সিস্টেমের নিরিখে তারা সবচেয়ে পিছনের সারিতে। কিন্তু প্রত্যেকের বাড়িতেই এমন হয়তো কেউ না কেউ রয়েছেন, যাঁরা আগে থেকেই অন্য কোনও রোগে আক্রান্ত। তাঁদের নিয়ে তো সমস্যা আরও বেশি।

ধরুন, যাঁদের বাড়িতে হার্টের অসুখের রোগী (heart patients) রয়েছেন, তাঁদের চিন্তা আরও বেশি। কারণ চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, করোনা সংক্রমণে মীলত শ্বাসনালী এবং ফুসফুস আক্রান্ত হয়। দেহে অক্সিজেনের পরিমাণ কমে যায়। ফলে হার্টের উপর চাপ পড়ে। তাঁরা কি বিশেষ যত্ন নেবেন? 

‘আমেরিকান কলেজ অব কার্ডিওলজি’ কোভিড– ১৯ করোনাভাইরাস আক্রান্ত হার্টের অসুখের রোগীদের জন্যে একটি গাইডলাইন মেনে চলার কথা বলেছেন। এক নজরে দেখে নেওয়া যাক করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে হার্টের রোগীরা কীভাবে বিশেষ যত্ন নেবেন।

 

১) হার্টের অসুখ থাকলে সেই রোগী নির্দিষ্ট কিছু ওষুধ প্রত্যেকদিন খান। এই সময় সেটা যেন ভুল না হয়। জনসংখ্যার নিরিখে দেশের স্বাস্থ্য পরিকাঠামো সম্পর্কে সম্যক ধারণা হয়তো আপনার রয়েছে। আর এখন সমস্থ ফোকাস করোনা মোকাবিলায়। ফলে অন্য সমস্যায় কতটা দ্রুত সুরাহা সম্ভব সেটা ভেবে দেখা জরুরি। তাই নিজে সাবধান হওয়া ভাল।

২) শরীরচর্চা বন্ধ করবেন না। ঘরের মধ্যে ফ্রি-হ্যান্জ করতে পারেন। প্রাণায়াম বা যোগাসন করতে পারেন। অথবা ছাদে হাঁটতে পারেন। অর্থাৎ হার্ট ভাল রাখতে যে এক্সসারসাইজ আপনি সাধারণ দিনে করতেন, তার কিছুটা এখনও বজায় রাখার চেষ্টা করুন।

৩) হার্টের সমস্যা থাকার কারণে যদি কিছু খাবার বারণ থাকে, এখনও সেগুলি মেনে চলার চেষ্টা করুন। প্রয়োজনে আপনি খেতে পারবেন এমন কোনও একটা পদ দিয়ে খেয়ে নিন। কিন্তু আপনার খাওয়া উচিত নয়, এমন কিছু রসজ মজুত রয়েছে বলে সেটা খাবেন না।

৪) চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে বারবার হাত ধোওয়া, নাকে, চোখে, মুখে হাত না দেওয়ার গাইডলাইন ফলো করুন। বাড়িতে থাকলেও এটা করে যেতেই হবে।

৫) হার্টের রোগী বাড়িতে থাকলে বা আপনি নিজে হার্টোর রোগী হলে, যে চিকিৎক আপনাকে দেখেন, তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ রাখুন। কোনও ছোট সমস্যাও অবহেলা করবেন না। চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে রুটিন ফলো করুন। 

৬) যে জিনিসটা আপনার হাতে নেই, সেটা নিয়ে অযথা টেনশন করবেন না। এতে সমস্যা বাড়বে। বাড়িতে থাকুন, সুস্থ থাকুন।

POPxo এখন চারটে ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!

২০২০ শুরু করুন আমাদের দারুণ দারুণ প্ল্যানার আর স্টেটমেন্ট সোয়েটশার্ট দিয়ে। এগুলো সবকটাই আপনারই মতো একশ শতাংশ মজার এবং অসাধারণ! ওহ হ্যাঁ, শুধুমাত্র আপনার জন্য রয়েছে ২০ শতাংশ ছাড়ের ব্যবস্থাও। দেরি কিসের আর, এখনই POPxo.com/shop থেকে কেনাকাটা সেরে ফেলুন আর নিজেকে আরেকটু পপ আপ করে ফেলুন!