বিউটি প্রোডাক্টস নিয়ে নানা তথ্য

স্ট্রেচ মার্কস থেকে শুরু করে যে-কোনও দাগ দূর করবে বায়ো অয়েল!

popadminpopadmin  |  May 15, 2019
স্ট্রেচ মার্কস থেকে শুরু করে যে-কোনও দাগ দূর করবে বায়ো অয়েল!

প্রেগন্যান্সির পরে স্ট্রেচ মার্কসের কারণে কি চিন্তায় আছেন? ছোটবেলায় দুষ্টুমি করতে গিয়ে পড়ে গিয়ে কপালে স্টিচ পড়েছিল, তার দাগ এখনও মেলায়নি? ব্যবহার শুরু করুন বায়ো অয়েল (Bio Oil)। দেখবেন, উপকার পাবেন একেবারে হাতে-নাতে। এই তেলে রয়েছে এমন কিছু উপাদান, যা অল্প সময়েই স্ট্রেচ মার্কস (Stretch Marks) তো দূর করেই, সঙ্গে যে-কোনও ধরনের দাগ মিলিয়ে দিতে, ত্বকের আর্দ্রতা বজায় রাখতে এবং স্কিন টোনের উন্নতিতেও ভরপুর সাহায্য করে। শুধু তাই নয়, মেলে আরও অনেক উপকারও (Wonderful Benefits And Uses Of Bio Oil)। তাই তো গত কয়েক বছরে বায়ো অয়েলের জনপ্রিয়তা বেড়েছে চোখে পড়ার মতোই!

বায়ো অয়েল এত কার্যকরী কেন? 

বায়ো অয়েলে আছে রোজমেরি তেল, যা স্কিনের ভিতরে প্রদাহের মাত্রা কমায়। সঙ্গে যে-কোনও ধরনের ক্ষতও দূর করে। তাই তো নিয়মিত বায়ো অয়েল ব্যবহার করলে যে-কোনও ধরনের দাগছোপ মিলিয়ে যেতে সময় লাগে না।

এই তেলে আছে ক্যামোমিল তেল, ল্যাভেন্ডার তেল, ক্যালেনডুলা তেল, ভিটামিন এ এবং ই-র মতো আরও বেশ কিছু কার্যকরী উপাদান। একবার ভাবুন, এই সবকটি উপাদান যখন একসঙ্গে ত্বকের ভিতরে প্রবেশ করে, তখন কতই না উপকার মেলে! বিশেষত, এই সব এসেনশিয়াল তেলের কারণে স্কিন টোনের উন্নতি ঘটে চোখে পড়ার মতো। ত্বকের ভিতরে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের মাত্রাও বাড়ে, যে কারণেও মেলে একাধিক উপকার।

POPxo recommends: Bio Oil – 60 ml (Specialist Skin Care Oil – Scars, Stretch Mark, Ageing, Uneven Skin Tone)

বায়ো অয়েলের উপকারিতা (Benefits of Bio Oil)

১. যে-কোনও ধরনের দাগ দূর করে

শরীরের যেখানে-যেখানে দাগ রয়েছে, সেখানে অল্প করে বায়ো অয়েল লাগিয়ে কিছুক্ষণ মাসাজ  করুন। টানা এক মাস, নিয়মিত এই তেল ব্যবহার করলে ধীরে ধীরে দাগ মিলিয়ে যেতে শুরু করবে। এমনকী পুড়ে যাওয়ার দাগ এবং চিকেন পক্সের দাগও মিলিয়ে যাবে।

Also Read Benefits of Bio Oil in Hindi

২. স্ট্রেচ মার্কস কমায়

প্রেগন্যান্সির কারণেই হোক, কী অন্য কোনও কারণে, শরীরের যে-কোনও অংশে স্ট্রেচ মার্কস দেখা দিলেই চোখ বন্ধ করে বায়ো অয়েল ব্যবহার করতে শুরু করুন। দেখবেন, অল্প দিনেই উপকার পাবেন। এই তেলে যে যে বিভিন্ন রকমের এসেনশিয়াল অয়েলের মিশ্রণ য়েছে, তা ত্বকে কোষের উৎপাদন বাড়িয়ে দেয়, যে কারণে স্ট্রেচ মার্কস মিলিয়ে যেতে সময় লাগে না। আর যদি প্রেগন্যান্সির একেবারে গোড়া থেকেই বায়ো অয়েলের ব্যবহার শুরু করা যায়, তা হলে তো কথাই নেই! তাতে স্ট্রেচ মার্ক হওয়ার আশঙ্কাই অনেক কমে যায়। এক্ষেত্রে যেখানে-যেখানে স্ট্রেচ মার্ক দেখা দিয়েছে, সেখানে অল্প করে বায়ো আয়েল লাগিয়ে মালিশ করতে হবে। প্রতিদিন মালিশ করলেই মিলবে উপকার।

আরও পড়ুন: stretch marks দূর করার ঘরোয়া উপায়!

৩. ত্বকের জেল্লা বাড়ে

bio-oil-2
দু’হাতের তালুতে অল্প করে বায়ো অয়েল নিয়ে মুখে লাগিয়ে কম করে মিনিটদুয়েক ধরে ধীরে-ধীরে মালিশ করুন। প্রতিদিন দু’বার এভাবে মালিশ করতে হবে। দেখবেন, ত্বকের জেল্লা তো বাড়বেই (bio oil for skin lightening), সেই সঙ্গে ত্বকের টোনেরও উন্নতি হবে (bio oil for skin care)। তবে একটা কথা মাথায় রাখবেন, এই তেল আজ লাগালেই যে কাল উপকার মিলবে, এমন নয়। ধৈর্য ধরে টানা এক মাস ব্যবহার করলে ধীরে ধীরে ফল মিলতে শুরু করবে।

আরও পড়ুন: গরমকালে মেকআপ ঠিক রাখার এই ৬টি কৌশল না জানলে যে জীবনই বৃথা!

৪. ত্বকের বয়স কমবে

নিয়মিত বায়ো অয়েলের মালিশ ত্বকের ভিতরে কোলাজেন এবং ইলাস্টিন কনটেন্টের মাত্রা বাড়তে শুরু করে, যার প্রভাবে বলিরেখা উধাও হয়ে যায়। সঙ্গে ত্বকের ইলাস্টিসিটিও বাড়ে। ফলে স্কিনের বয়স কমে নিমেষে (bio oil for face wrinkles)। ফলে যাঁরা বলিরেখার হাত থেকে পরিত্রাণ পেতে চান, তাঁরা নিয়মিত বায়ো অয়েল ব্যবহার করতে শুরু করুন। ঠিকঠিক উপকার পেতে দিনে অন্তত দু’বার অয়েল মালিশ করতে হবে।

৫. ত্বক আর্দ্র রাখে

bio-oil-5
বায়ো অয়েলে রয়েছে ল্যাভেন্ডার, ক্যামোমিল এবং মেরিগোল্ড এসেনশিয়াল তেল, যা ত্বকের হারিয়ে যাওয়া আর্দ্রতা ফিরিয়ে আনতে বিশেষ ভূমিকা নেয়। এমনকী, ত্বকের জেল্লা বাড়তেও সাহায্য করে। শুধু তাই নয়, নিয়মিত মুখে বায়ো অয়েল মালিশ করলে ত্বক হয়ে ওঠে নরম এবং তুলতুলে।

কীভাবে ব্যবহার করবেন বায়ো অয়েল (Uses of Bio Oil)

বিশেষজ্ঞদের মতে, এই তেল (bio oil) কোনও জায়গায় লাগিয়ে যদি গোল-গোলভাবে মালিশ করা হয়, তা হলে নাকি দ্রুত উপকার মেলে। কিন্তু ততক্ষণ মালিশ করে যেতে হবে, যতক্ষণ না তেলটা পুরোপুরি শুকিয়ে যাচ্ছে।

যাঁদের ত্বক তৈলাক্ত (oily skin) তাঁরা কী এই তেল ব্যবহার করতে পারবেন?

অবশ্য়ই, তবে খুব অল্প পরিমাণে। কারণ, ত্বক যেহেতু এমনিতেই বেশ তেলতেল, তার উপর যদি আরও তেল মুখে লাগানো হয়, তা হলে অস্বস্তি বাড়তে পারে।

আরও পড়ুন: গরমকালে অয়েলি স্কিনের জন্য এই ৪টি সানস্ক্রিন বেস্ট

কত দিনে উপকার পাওয়া যাবে?

বায়ো অয়েল ম্যাজিকের মতো কাজ করে না। একটু ধৈর্য ধরে টানা দু-তিন মাস যদি এই তেল ব্যবহার করা যায়, তা হলে কিন্তু সত্যিই নানা উপকার মেলে। তবে মনে রাখবেন, দিনে দু’বার এই তেল দিয়ে মালিশ করতে হবে।

ঠোঁটে কি বায়ো অয়েল লাগানো যেতে পারে?

নিয়মিত ঠোঁটে বায়ো (Bio Oil) অয়েল লাগালে ঠোঁট হয়ে ওঠে নরম এবং তুলতুলে। বিশেষত, শীতকালে এই তেল ঠোঁটে লাগালে সবচেয়ে বেশি উপকার পাওয়া যায়।

স্নানের জলেও মেশাতে পারেন এই তেল

এক বালতি জলে ১-২ চামচ বায়ো অয়েল মিশিয়ে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুন। মিনিটদুয়েক পরে স্নান সেরে নিন। সপ্তাহে তিন-চার দিন বায়ো অয়েল (bio oil) মেশানো জলে স্নান করলে ত্বকের জেল্লাও বাড়বে চোখে পড়ার মতো।

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

এগুলোও আপনি পড়তে পারেন

সুন্দর চুলের যত্নে ব্যবহার করুন ক্যাস্টর ওয়েল বা রেড়ির তেল