পুজো স্পেশ্যাল টিপস: এই ক'দিনে ওজন না কমাতে পারলে অন্তত আর মোটা যেন না হন, সেদিকে নজর দিন

পুজো স্পেশ্যাল টিপস: এই ক'দিনে ওজন না কমাতে পারলে অন্তত আর মোটা যেন না হন, সেদিকে নজর দিন

দুর্গা পুজো দোরগোড়ায়! ইতিমধ্যে অনেকেই নাওয়া-খাওয়া ভুলে জিমে গিয়ে ঘাম ঝরিয়ে, সঙ্গে ডায়েটিং করে বেশ কিছুটা ওজন কমিয়ে ফেলেছেন। কিন্তু কমিয়ে ফেলা ওজন ধরে রাখবেন কীভাবে, সে খবর রাখেন না অনেকেই। ফলে কিছুদিন ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকলেও ধীরে-ধীরে আবার ওজন বাড়তে শুরু করে। ফলে আখরে কোনও লাভই হয় না। তাই তো ওজন কমিয়ে ফেলার পরে এই টিপসগুলি মেনে চলা একান্ত প্রয়োজন। তাতে কী লাভ হবে? প্রথমত, চটজলদি ওজন (Weight) বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা আর থাকবে না, সেই সঙ্গে নানা রোগ-ব্যাধিও দূরে থাকতে বাধ্য হবে।

১. প্রচুর ক্যালরি রয়েছে এমন খাবার এড়িয়ে চলতে হবে

দিনের পর দিন শরীরে অতিরিক্ত মাত্রায় ক্যালরি প্রবেশ করলে ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকবে কীভাবে বলুন! তাই যে সব খাবার ক্যালরিতে ঠাসা, সেগুলি এড়িয়ে চলাই বুদ্ধিমানের কাজ। তাই ভাজাভুজি জাতীয় খাবার খাওয়া যেমন কমাতে হবে, তেমনই মিষ্টি খাওয়াও চলবে না। জাঙ্ক ফুডও এড়িয়ে চলতে হবে। বেশি করে খেতে হবে ফাইবার এবং কমপ্লেক্স কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার। তাতে অনেকক্ষণ পেট ভরা থাকবে। ফলে মিনিটে মিনিটে মুখ চালানোর ইচ্ছা আর থাকবে না, যে কারণে ক্যালরির প্রবেশ ঘটবে কম। ফলে ওজন বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা কমবে।

২. এক্সারসাইজ ছাড়লে চলবে না

ওজন ধরে রাখতে চান তো এক্সারসাইজ চালিয়ে যেতে হবে। জিমে যেতে না পারেন, অল্পবিস্তর হাঁটাহাঁটি বা জগিং করুন না, তাতেও উপকার পাবেন। সঙ্গে লিফ্টের পরিবর্তে সিঁড়ি ব্যবহার করুন। দেখবেন, এত পরিমাণ ক্যালরি ঝরবে যে ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকতে বাধ্য হবে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ওজন বাড়বে, না কমবে, তা মেটাবলিজম রেটের উপরও নির্ভর করে। আর খান দুয়েক স্টাডিতে একথা প্রমাণিত হয়ে গেছে যে সপ্তাহে কম-বেশি ২০০ মিনিট এক্সারসাইজ করলে মেটাবলিজ রেটেরও উন্নতি ঘটে। ফলে ওজন কমতে সময় লাগে না। তাই বুঝতেই পারছেন, ওজন ধরে রাখতে শরীরচর্চার কোনও বিকল্প নেই বললেই চলে।

৩. ব্রেকফাস্ট খেতে ভুলবেন না

ওজন ধরে রাখতে চান তো সাড়ে সাতটা থেকে আটটার মধ্যে ব্রেকফাস্ট সেরে নেবেন। কিন্তু প্রশ্ন হল, ব্রেকফাস্টের সঙ্গে ওজন বাড়া-কমার কী সম্পর্ক? বিশেষজ্ঞদের মতে ব্রেকফাস্ট না করলে পেশি ভাঙতে শুরু করে। আর সেই জায়গায় ফ্যাট জমতে থাকে। ফলে ওজন বাড়তে সময় লাগে না। এক্ষেত্রে আরেকটা বিষয় মাথায় রাখা একান্ত প্রয়োজন। কী বিষয়? ব্রেকফাস্টে প্রোটিন, ফাইবার এবং কমপ্লেক্স কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার খেতে ভুলবেন না। তাতে বেশি উপকার পাবেন।

৪. মেপে খান সিম্পল কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার

শরীরকে সচল রাখতে নিয়মিত ১০০ গ্রাম সিম্পল কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার খাওয়া জরুরি। তাই অল্প করে ভাত বা রুটি খাওয়া চলতে পারে। কিন্তু বেশি পরিমাণে খাবেন না যেন! কারণ, শরীরে সিম্পল কার্বোহাইড্রেটের মাত্রা বাড়তে শুরু করলে কিন্তু ওজনও বাড়বে।

৫. lean muscle-এর গঠনে নজর দিন

সময়-সুযোগ থাকলে অল্পবিস্তর resistance training করতে পারেন। তাতে lean muscle-এর গঠনে উন্নতি ঘটবে। আর এমনটা হলে মেটাবলিজম রেটের উন্নতি ঘটতেও সময় লাগবে না। ফলে ওজনও নিয়ন্ত্রণে থাকবে।

৬. শরীরে জলের ঘাটতি যেন না হয়

একাধিক স্টাডির পরে একথা জলের মতো পরিষ্কার হয়ে গেছে যে শরীরে জলের ঘাটতি হলে 'ওয়াটার রিটেনশন' হয়, যে কারণেও ওজন বাড়ে। তাই তো দৈনিক তিন-চার লিটার জল খাওয়ার পরামর্শ দেন ডায়াটেশিয়ানরা। তাতে ওজন তো নিয়ন্ত্রণে থাকেই, সেই সঙ্গে আর অনেক উপকার পাওয়া যাবে। বিশেষ করে রক্তে মিশে থাকা টক্সিক উপাদানগুলি বেরিয়ে যেতে বাধ্য হয়। ফলে ছোট-বড় রোগ-ব্যাধির খপ্পরে পড়ার আশঙ্কা আর থাকে না।

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

এগুলোও আপনি পড়তে পারেন

প্রেগন্যান্সির পর কীভাবে কমাবেন স্তনের মাপ

আপনি যদি রংচঙে, মিষ্টি জিনিস কিনতে পছন্দ করেন, তা হলে POPxo Shop-এর কালেকশনে ঢুঁ মারুন। এখানে পাবেন মজার-মজার সব কফি মগ, মোবাইল কভার, কুশন, ল্যাপটপ স্লিভ ও আরও অনেক কিছু!