Advertisement

Family

আপনি কি প্রতিটি সম্পর্কে হস্তক্ষেপ করেন? তাহলে প্রতিবেদনটি আপনার জন্যই

Debapriya BhattacharyyaDebapriya Bhattacharyya  |  Mar 12, 2020
আপনি কি প্রতিটি সম্পর্কে হস্তক্ষেপ করেন? তাহলে প্রতিবেদনটি আপনার জন্যই

Advertisement

জানি, শিরোনামটা দেখেই বেজায় চটেছেন! কিন্তু কী বলুন তো, আমরা স্বীকার না করলেও অনেক সময়ই কিন্তু নানা সম্পর্কে (relationships) ভীষণভাবে হস্তক্ষেপ (control) করে ফেলি। অনেকে তো বুঝতেও পারেন না যে তিনি সামনের মানুষটির জীবনে অনধিকার প্রবেশ করে ফেলছেন। আসলে কাউকে ভালবাসা, তাঁর জন্য চিন্তা করা এক ব্যাপার আর তাঁর জীবনে ঢুকে প্রতিটি বিষয়ে হস্তক্ষেপ (control) করা কিন্তু সম্পূর্ণ আলাদা ব্যাপার। আমরা অনেকে বুঝতেই পারি না যে কখন এই দুটি বিষয়ের মধ্যেকার সূক্ষ্ম রেখাটি আমরা পার করে ফেলছি। তাতে দু’রকমের সমস্যা হয় – এক, যার জীবনে আপনি বড্ড বেশি হস্তক্ষেপ করে ফেলছেন, তাঁর জীবন ওষ্ঠাগত হয়ে ওঠে; দুই, আপনাদের মধ্যেকার সম্পর্কটি (relationships) নষ্ট হতে বসে। কীভাবেই বা বুঝবেন যে আপনি অন্য কারও জীবনে বেশি হস্তক্ষেপ করে ফেলছেন, আর কীভাবেই বা এই অভ্যাস ত্যাগ করবেন; তা নিয়েই আজকের এই প্রতিবেদন।

কীভাবে বুঝবেন আপনি কারও জীবনে হস্তক্ষেপ করছেন আর কীভাবেই বা এই অভ্যাস ত্যাগ করবেন

১। আপনি যদি বড্ড বেশি খুঁতখুঁতে হন প্রতিটি বিষয়ে তাহলে মুশকিল। পারফেকশনিস্ট হওয়া খারাপ সে কথা একবারও বলছি না কিন্তু, তবে প্রতিটি বিষয়ে যদি সামনের মানুষটির খুঁত খুঁজে বার করেন তাহলে সমস্যা। এতে আপনার সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা প্রবল। একবার ভাবুন তো আপনাকে যদি কেউ সব সময় খারাপভাবে বলত, আপনার কেমন লাগত?

২। ধরুন আপনার প্রেমিক (partner) অফিসে প্রমোশন পেলেন কিন্তু আপনি তাঁকে বললেন, “এ আর এমন কী ব্যাপার!”; অথবা আপনার সন্তান পরীক্ষায় ঠিকঠাক নম্বর পেল, কিন্তু আপনি তাতে মোটেই খুশি হলেন না; অথবা আপনার বন্ধু আপনার জন্য কিছু রান্না করে নিয়ে এলেন কিন্তু আপনি তা খেয়ে নুন কম হয়েছে বা ঝাল বেশি হয়েছে বলে তাঁকে চারটি জ্ঞান দিয়ে দিলেন রান্না সম্বন্ধে – এটা ঠিক নয়। কেউ যদি ভালবেসে আপনার জন্য কিছু করে, তাহলে তাঁর সেই কাজটিকে সম্মান করতে শিখুন।

৩। আচ্ছা, একটা কথা বলুন তো, আপনার প্রেমিক বা বর (partner) আপনার প্রতি ঠিক কতটা যত্নশীল? এবাবা, ভাবতে বসে গেলেন! আচ্ছা আমরা এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজে বার করতে আপনাকে সাহায্য করছি। তিনি কি আপনার পছন্দ-অপছন্দের কথা মাথায় রাখেন? তিনি কি আপনার ছোটখাটো বিষয়ের প্রতিও নজর দেন? তাহলে তো বলতে হবে আপনার প্রতি তিনি যথেষ্টই যত্নশীল। কিন্তু তিনি আপনার প্রতি যত্নশীল মানেই যে আপনি তাঁর উপরে আপনার সব পছন্দ-অপছন্দের বোঝা চাপিয়ে দেবেন সেটিও তো ঠিক না তাই না?

৪। প্রতিটি সম্পর্কেই একটু ব্যক্তিগত স্পেস প্রয়োজন। কথাটা মানেন তো? মানে ধরুন আপনি যদি পাঁচ মিনিট পর পরই আপনার প্রেমিক কে বা বরকে ফোন করতে থাকেন, অথবা সন্তান একটু বড় হলে সে কী খাবে, কখন খাবে, কতটা খাবে, কখন ঘুমোবে – সব বিষয়ে যদি হস্তক্ষেপ (control) করতে থাকেন তাহলে কিন্তু সম্পর্কগুলোতে (relationships) সমস্যা আসতে সময় লাগবে না।

৫। আচ্ছা, আপনি কি বরের ফোন বা ব্যাগ চেক করেন? এটিও কিন্তু ব্যক্তিগত স্পেসে হস্তক্ষেপ করা! যদি এই অভ্যাসটি আপনার থেকে থাকে, তাহলে আজই তা বদলান। প্রতিটি সম্পর্কের মূল ভিত কিন্তু বিশ্বাস। মনে রাখবেন!

মূল ছবি সৌজন্যে – জি ফাইভ

POPxo এখন চারটে ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!

২০২০ শুরু করুন আমাদের দারুণ দারুণ প্ল্যানার আর স্টেটমেন্ট সোয়েটশার্ট দিয়ে। এগুলো সবকটাই আপনারই মতো একশ শতাংশ মজার এবং অসাধারণ! ওহ হ্যাঁ, শুধুমাত্র আপনার জন্য রয়েছে ২০ শতাংশ ছাড়ের ব্যবস্থাও। দেরি কিসের আর, এখনই POPxo.com/shop থেকে কেনাকাটা সেরে ফেলুন আর নিজেকে আরেকটু পপ আপ করে ফেলুন!